ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

মানুষের মুখের ভাষা ছাড়াও মানুষের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ প্রতঙ্গ মানুষের বিভিন্ন অভিব্যক্তি বা অনুভূতি প্রকাশ করে থাকে।“পা”-মানুষের একটি বিশেষ অঙ্গ যার দ্বারা মানুষ তার ঘৃণা-বিতৃষ্ণনা প্রকাশ করে; এমন কি এই পা দিয়ে যদি বিশেষ একটি অঙ্গে আঘাত করে তবে তা কাউকে সবচেয়ে বড় অপমান হিসেবে গণ্য করা হয়; পক্ষান্তরে এই বিশেষ পদ্ধতি প্রচন্ড রাগের প্রকাশ মাধ্যম।

গত ১৯.১২.২০১১ ইং-এর ‘দৈনিক প্রথম আলো’-র প্রথম পাতার প্রধান খবরের সাথে একটি ছবি এসেছে যা হয়তো খুব কম মানুষের-ই দৃষ্টি এড়িয়ে গেছে।ফটো জারর্নালিজমের ইতিহাসে স্থান করে নেয়ার মত একটি ছবি, পুরস্কার পাওয়ার মত একটি ছবি, সর্বপরি সাধারণ মানুষের অন্তর-আত্না কেঁপে ওঠার মত একটি ছবি, চোখ ফেটে কান্না আসার মত একটি ছবি, খুব সাধারন দু’টো পায়ের অসাধারণ হয়ে ওঠার ছবি। পা দু’টো যেন ভীষণ ঘৃণা আর রাগ নিয়ে লাথি ছুড়ে মারছে আমাদের এই সভ্য(!) সমাজের বাসিন্দাদের দিকে।

উচিত অনুচিতের অনেক আগেই পিছে ফেলে এসেছি; এখন বিচার হয় কতটুকু অসম্ভব তার। ইভটিজিংযের প্রতিবাদ করায় জননী-শিক্ষক-ভাই কে হত্যা, নিরীহ ছাত্রদের উপর নির্যাতন, ভূতযুক্ত সর্ষে দিয়ে শেয়ার বাজারের ভূত ঝাড়ানোর মতো অসংখ্য অসম্ভবকে আমরা সম্ভব করেছি।

কিন্তু এবার এটা কি হলো? একটা জ্যান্ত মানুষকে পুড়িয়েই মেরে ফেললো!!! কিভাবে একটা মানুষ পুড়তে থাকে আর কিছু মানুষের মত দেখতে জীব (পড়ুন শুয়োর) বলে- “যে আগাইবা,তারে ধরে আগুনে ফেলব,যাও ভাগো,আগে নিজেরে বাঁচাও…!” হয়তো এগুলোর উত্তর অসাধারণ যারা তারা দিতে পারবে কিন্তু আমরা যারা সাধারণ তাদের মনে করিয়ে দিতে চাই, আপনি ও কিন্তু জীবন জীবিকার তাগিদে রাস্তায় বের হবেন তখন যদি এমন কোন ঘটনা ঘটে। ভাবুনতো একবার; চারিদিক থেকে আগুনের লাল শিখা আপনার দিকে এগিয়ে আসছে আপনি তার মাঝে, আপনার চামড়াটা পুড়ে কটু গন্ধ ছড়িয়ে খসে খসে পড়ছে, অসহ্য যন্ত্রণায় প্রতিটি লোমকূপ বিকৃত হয়ে যাচ্ছে, ফুসফুস ধোঁয়ায় ভরে দম বন্ধ হয়ে চোখ দু’টো বের হয়ে আস্তে চাইছে, মা-বাবা-স্ত্রী-সন্তান-ভাই-বোন-প্রিয়মানুষদের মুখগুলো ভেসে উঠছে যাদের আপনি আর কখনো ই দেখতে পারবেন না… ঠিক সেই সময় আপনি বাঁচার শেষ আশাটা নিয়ে চিতকার করছেন- “বাঁচাও!বাঁচাও!বাঁচাও কেউ আমাকে” আর তখন যদি দু’চারটা মানুষের মত দেখতে জীবের
(পড়ুন শুয়োর) ভয়ে কেউ এগিয়ে না আসে বাঁচাতে, কেমন লাগবে আপনার? অনেক কষ্ট হবে,মানুষ হয়ে জন্ম নেওয়াটা ঘেন্নার মনে হবে তাই না?

মরতে তো হবেই আজ বা কাল; তাই চলুন না মানুষ হয়ে জন্ম নেওয়ার ঘেন্না নিয়ে রাস্তার কুকুর বেড়ালের মতো মরার আগে মানুষ হয়ে বাঁচার চেষ্টা করি।মাথাটা উঁচু করে বলি, আমরা ৯৯% মানুষ ১% অমানুষ কে পরাজিত করতে এসেছি।মানুষ আমি মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি…