ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

tv
খবরটি হইল শীঘ্রই দেশে আরেকটি টিভি চ্যানেল অন এয়ারে আসিতেছে। শোনা যাইতেছে এখানেই শেষ নয়। একের পর এক নাকি আসিতেই থাকিবে। তাহাতে আমাদের কোন সমস্যা নাই। কিন্ত প্রশ্ন হইল আমাদের লাভটাই বা কি হইবে?
সারা রাত দল কানাদের আজাইরা প্যাঁচাল, ঘণ্টায় ঘণ্টায় খবর, অজস্র বিজ্ঞাপনের মাঝে বিএনপি আমলের বিদ্যুতের দেখা পাওয়ার মত পাঁচ মিনিটের বস্তা পচা ধারাবাহিক নাটক, এই তো?
বড়জোর বিদেশি চ্যানেলের হুবুহ কপি করা কিছু অনুষ্ঠান। এ দেখার চেয়ে গিন্নি বলেন আমার স্টার প্লাসই ভাল, পুত্র বলে মটু পাতলুই বা খারাপ কি? আমি বলি একই তো প্যাঁচাল চল দেখি লাইভ খেলা কোথায় পাওয়া যায় অথবা এসে মুখ গুঁজি এই ল্যাপটপে। যে দেশে মস্তিষ্কের এত অভাব সে দেশে এত চ্যানেল দিয়ে হবেটা কি শুনি।

কোন চ্যানেলে কবিতা নেই, বসে না সাহিত্যালাপের আসর, কোন চ্যানেলে নেই পথিকৃৎদের পদ চিহ্ন, নেই তাহাদের নিয়ে অনুষ্ঠান, কোন চ্যানেলে নেই আত্ম কর্মসংস্থানের উপায় সৃষ্টির নির্দেশনা। বলে না অগ্রজদের এগিয়ে যাওয়ার গল্প।

কি হয় বলুন তো এই চ্যানেল দিয়ে? বিজ্ঞাপনের টাকাটায় ভাগ বসানো ছাড়া এই চ্যানেলগুলির মালিকদের আর কি-ই বা উদ্দেশ্য বলতে পারেন?

কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির দেশে কৃষিকাজ ও কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ নিয়ে নেই একটি চ্যানেল। নেই শিশুতোষ চ্যানেল। জানি দেশে ৩০/৩৫টি চ্যানেল আছে আপনার মন খারাপ, মন ভাল করতে কিছু একটা দেখতে ইচ্ছে করছে। রিমোটটি হাতে নিয়ে দেখুন জ্বিহবার তেতো স্বাদটা আরও বেড়ে গেছে তাই তো?

এ যেন বাস স্ট্যান্ডের সারি সারি সিগারেটের দোকান। সব দোকানে একই পণ্য, একই মূল্য, একই কথা। যার যাকে পছন্দ সে তার ক্রেতা।

kmgmehadi@gmail.com