ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

ফেনীতে অস্ত্রসহ আটক সরকার দলীয় সংসদ সদস্য নিজাম হাজারীর ২৬ অনুসারীর বিরুদ্ধে রোববার অস্ত্র আইনে মামলা করেছে র‌্যাব। নিজাম হাজারীর ২৬ অনুসারী এখন কারাগারে এ সব আমরা সবাই জানি।
প্রশ্ন হল, নিজাম হাজারিকে কেন জবাবদিহির আওতায় আনা হবে না।
যদি তাকেও আইনের আওতায় আনা না হয় তাহলে এই ২৬ জনের কোন অপরাধের বিচার হবে?
কেন তারা ধরা পরল, নাকি কেন তারা অবৈধ অস্ত্র বহন করছিল সেই অপরাধে?
প্রশ্নটি এই জন্যেই করছি কারণ, যে নিজাম হাজারিরা সন্ত্রাসী লালন করছে, তৈরি করছে, ব্যবহার করছে। তাদের আইনের আওতায় না এনে এসব চুনোপুঁটিকে আইনের আওতায় এনে তোঁ কোন লাভ নেই। এই ২৬ জনের বিকল্প আরও শত শত সন্ত্রাসী বানানো হবে। যাদের কিছু ধরা পরলেই কি না পরলেই কি?
এখানে নিজাম হাজারি একটি প্রতীক মাত্র এমন অনেক নিজাম হাজারীরা আছেন। যাদের কেউ সরকার দলীয় কেউ কেউ অন্যান্য দলীয়। এদেরকে চিহ্নিত করুন, আইনের আওতায় আনুন। তবেই প্রকৃত অর্থে সন্ত্রাসী দমন সম্ভব হবে। নয়ত নয়। আর তা না করে আইন যদি শুধুমাত্র এই ২৬ জনের বিচারের মধ্যেই সিমাবদ্ধ থাকে। তাহলে তো অস্ত্র বহনের দায়ে বিচার করা হলনা বিচারটা হয়ে যাবে কেন তারা ধরা পড়ল সেই অপরাধের দায়ে।
এ দেশে একজন সন্ত্রাসীও একটি দিন টিকতে পারবে না ক্ষমতাবানদের আশির্বাদ ছাড়া। হতে পারে সেটা প্রশাসনিক ক্ষমতা হতে পারে রাজনৈতিক।
এই ক্ষমতাবানদের জবাবদীহির আওতায় আনুন। এদের সাথে আপোষরফা বন্ধ করুন। এ দেশ থেকে সন্ত্রাস পালাতে বাধ্য। তবে সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার মত সৎ সাহস এবং স্বদিচ্ছা দুটোই প্রয়োজন। আশা করি এই সরকার তা দেখাতে সক্ষম হবে।

kmgmehadi@gmail.com