ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

ভারতীয় গরু বাংলাদেশে আসবেই। এক রুট বন্ধ হবে দশটি নতুন রুট চালু হবে। গরু পাচার বন্ধ হবে না। ভারত সরকার চাইলেই এটা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে পারে। কিন্তু আনবে না। শুধুমাত্র জনরোষ যাতে তৈরি না হয় সে জন্যে মাঝে মাঝে গরুর রাখালদের হত্যা করা হবে। বাংলাদেশের গরু ব্যবসায়ীরা এক মাস গরু আনতে রাখাল পাঠানো বন্ধ করলে একমাস পরে দেখবেন ভারতীয় রাখালরাই গরু পৌঁছে দিতে সীমান্ত পেড়িয়ে আসছে।
ভারত থেকে গরু আমদানি কখনোই সম্ভব নয় ধর্মীয় কারণে। আর গরু পাচার বন্ধ করা কখনোই সম্ভব নয় অর্থ নৈতিক কারণে।

অতএব সীমান্ত হত্যা অথবা গরু পাচার অনন্তকাল ধরে এভাবেই চলতে থাকবে। যারা ভাবছেন এই ঈদে ভারতীয় গরু আসবে না তারা ভুল ভাবছেন। শেষ পর্যন্ত দেখবেন ভারতীয় গরু আসবে এবং খামারীদের মাথায় হাত পড়বে।
চোরাই পথে গরু আমদানি বন্ধ করতে হলে বাংলাদেশ সরকারকেই কঠোর হতে হবে। প্রশ্ন হল সরকার কঠোর হবে কি না?

আপাত দৃষ্টিতে তেমন কোন উদ্যোগ দেখছি না। অথচ দেশীয় খামারীদের উৎসাহ যোগাতে বাংলাদেশ সরকারেরই কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়া প্রয়োজন। প্রধান খাদ্য শস্যে(চাল) সয়ং সম্পন্ন বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রেও সয়ং সম্পন্নতা অর্জনে সক্ষম হত। প্রয়োজন স্ব উদ্যোগে চোরাই পথে ভারতীয় গরু আসা বন্ধ করা।