ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

পুলিশ সাধারণ মানুষের কাছে শেষ আশ্রয়। যে যত কথাই বলুক শেষ পর্যন্ত বিপদ থেকে উদ্ধারের জন্য পুলিশের কাছেই যেতে হয়। আবার বিপদে যাতে না পরতে হয় সে কারণেও পুলিশের কাছে যেতে হয়।

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। এত বিশাল সদস্যের একটি বাহিনী, যারা সর্বদাই সিভিলিয়ানদের সাথে থাকে তাদের মধ্যে থেকে কিছু সদস্য বিপথগামী হতে পারে। এটা অসম্ভব কিছু নয়। আমরা তো এই পুলিশকেই কদিন আগেও দেখেছি নির্বিচারে মার খেতে। হাতে অস্ত্র থাকা স্বত্বেও তারা সাধারণ মানুষের উপর তার ব্যবহার করেন নি। তাদের প্রতি শ্রদ্ধায় আমাদের মস্তক কি নত হয়ে আসেনি?

 

pic-20_149243

 

কিন্তু সমস্যা হল একজন পুলিশ একই সাথে পুরো পুলিশ বাহিনীর প্রতিনিধিত্বও করে। একজন পুলিশের কাছ থেকে একজন সাধারণ মানুষ যখন সহযোগিতা লাভ করে তা যেমন সমগ্র পুলিশ বাহিনীর প্রতিই সাধারণ মানুষকে আস্থাশীল করে তোলে তেমনি একজন এস আই, মাসুদ আবার সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা হিনতার দিকেও ঠেলে দেয়। আর এ কারণেই সংখ্যায় যত অল্পই হোক পুলিশের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ শুধু পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তিই ক্ষতিগ্রস্ত করছে না, সাধারণ মানুষকেও ভয়ঙ্কর ভাবে নিরাপত্তা হীন করে তুলছে।

যে পুলিশের ভরসায় আমি রাত বীরাতে বিশেষ প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হই, সেই পুলিশই যদি আমার নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দেখা দেয় তাহলে তো তা সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে ভাববেন বলে আশা করি। দায়ী পুলিশ সদস্যদের শাস্তি নিশ্চিতই শুধু নয় পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের মোটিভেশনের উপরেও নজর দেয়াটা জরুরী। পুলিশ ফিরে আসুক তাদের নীতি আদর্শের ছায়ায়। সাধারণ মানুষ নিশ্চিন্তে সহযোগিতা নিতে আসুক পুলিশের কাছে। পুলিশ আমার ভাই আমার শত্রু নয় এটা বলতে চাই জোড় গলায়। সেই অধিকার আমাদের নিশ্চয়ই আছে। পুলিশ প্রশাসন কি তা নিশ্চিত করতে পারবে?