ক্যাটেগরিঃ চিন্তা-দর্শন

 

subodh-1170x660
এটি একটি সিরিজ গ্রাফিতি। ঢাকার দেয়ালে দেয়ালে অনেকদিন ধরেই গ্রাফিতিটি আঁকা হচ্ছিল। ‘সুবোধ তুই পালিয়ে যা, তোর ভাগ্যে কিছু নেই, সুবোধ তুই পালিয়ে যা- এখন সময় পক্ষে না, সুবোধ তুই পালিয়ে যা ভুলেও ফিরে আসিস না! সুবোধ, কবে হবে ভোর?…’। এমন সব বক্তব্য সম্বলিত ‘সুবোধ’ সিরিজের গ্রাফিতিগুলো আঁকা হয়েছে। গ্রাফিতিতে সুবোধ চরিত্রের ব্যক্তিটিকে চিত্রায়িত করা হয়েছে একজন বিক্ষুব্ধ মানুষ হিসেবে। তার হাতে আছে খাঁচাবন্দী সূর্য, যেটি বেরিয়ে আসার অপেক্ষায় আছে।

প্রশ্ন হল সুবোধকে কেন পালিয়ে যেতে বলা হচ্ছে? তার মানে কী? এতদিন এখানে তার অবস্থানের সুযোগ ছিল, এখন নেই? কেন সে বলছে, তোর ভাগ্যে কিছু নেই। এতদিন কি তবে তার ভাগ্য প্রসন্ন ছিল? সুবোধ যখন বলছে ’এখন সময় পক্ষে না, সুবোধ তুই পালিয়ে যা ভুলেও ফিরে আসিস না!’ তখন তো সহজেই বোঝা যায় একটা সময় তার পক্ষে ছিল। প্রশ্ন হল সেটা কোন সময়? সুবোধ জানতে চায় কবে হবে ভোর। প্রশ্ন হল সেটা কোন ভোর? কাদের জন্য সূর্যোদয়ের অপেক্ষা করে সুবোধ? কে বা কারা এই সুবোধ?

গ্রাফিতির কথাগুলো কি সাধারণ একজন দেশপ্রেমিকের আকুলতা ফুটিয়ে তোলে নাকি বিশেষ কোন গোষ্ঠীর সাঙ্কেতিক কোন বার্তা ফুটিয়ে তুলছে, ভেবে দেখা দরকার। আমরা দেখতে পাচ্ছি, সুবোধের কারিগর ভীরু। তার মনোবৃত্তি পলায়নপর। একজন বিদ্রোহী, একজন দেশপ্রেমিক কিংবা একজন সমাজ সংস্কারকের পলায়নপর মনোবৃত্তি থাকে না। সে ঘুরে দাঁড়ায়। সে বুক চিতিয়ে রুখে দাঁড়ায়। সে ডাক দেয় আলোতে আসার। সে পালাতে বলে না। সে সূর্যকে নিয়ে ছোটে না। সে অন্ধকারকে ঝাঁটাপেটা করে। একজন বিদ্রোহী পালটে ফেলতে আসে গোটা সমাজ ব্যবস্থাকে। আর তা করতে গিয়ে সে মরতেও পিছপা হয় না। আর আমরা এখানে যে সুবোধকে দেখছি সে তার উপযুক্ত পরিবেশ না পেয়ে পালাতে চাইছে। আমি এই সুবোধকে তাই মোটেই ভাল চোখে দেখছি না।

তবে এটাও ঠিক কেউ কেউ এই সুবোধকে দেখছেন একজন সুস্থ সুন্দর বোধের মানুষ হিসেবে আর আমার মত কেউ কেউ যৌক্তিক কারণেই তাকে দেখছে বাঁকা চোখে। সুবোধ যদি একজন সুস্থ সুন্দর বোধের মানুষ হিসেবে কথাগুলো বলত তাহলে তো ভালই হতো। আর ঠিক তা যে নয় সে ব্যাপারেও নিঃসন্দেহ হওয়ার কি উপায়?

এই গ্রাফিতিকে একেকজন একেকভাবে দেখবে, বিশ্লেষণ করবে এটাই স্বাভাবিক। আর সেটাই এর কারিগরের সফলতা। কিন্তু একজন সাধারণ সচেতন মানুষ হিসেবে উপরোক্ত প্রশ্নগুলো তো আমরা করতেই পারি। আর সে প্রশ্নের উত্তরও তো থাকা চাই। এক কথায় যদি বলি, তাহলে বলব, সুবোধকে পালাতে নয় এর কারিগররা ঘুরে দাঁড়াতে বললেই আমরা একে শুভ বলে ধরে নিতে পারতাম। এমন কাপুরুষচিত পলায়ন পর মানুষকে কেবল অশুভই বলা যায়।