ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

আবার সাগর-রুনি প্রসঙ্গ। আমরা কত অসহায়! কত বেশি প্রতারিত! তার জ্বলন্ত উদাহরন হয়েই বুঝি রইল এই দম্পতি। মৃত্যুর ৭২ দিন পরে লাশের পুনঃময়নাতদন্তের আবেদন। তারমানে কি? প্রথম ময়নাতদন্তের রিপোর্ট সঠিক ছিল না? বা পূর্নাঙ্গ ছিল না? আর সেটা ধরা পড়ল এতদিন পরে র‌্যাবের হাতে পড়ে?

তাহলে কতটা হালকাভাবে এই বিষয়টাকে নেয়া হয়েছিল একবার ভাবুন তো। মহামান্য আদালতের কাছে ব্যর্থতার দায় স্বীকারই কি যথেষ্ট? এদের কি শান্তি হওয়া উচিৎ নয়? তাদের একের পর এক ব্যর্থতা আমাদের আজ করে তুলেছে নিরাপত্তাহীন। আমরা ক্রমশঃ এগিয়ে যাচ্ছি এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির দিকে। মহামান্য আদালত, অন্তত একবার এই ব্যর্থতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিন। অনেকে বলেন আজ দেশ চালায় আদালত। আমরা বলি, আদালতের এই নজরটুকু না থাকলে এতদিনে এ সমাজ পুরোপুরি-ই উচ্ছন্নে যেত। আর তাই অনুরোধ করছি, মহামান্য আদালত, অন্তত একবার এই ব্যর্থতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিন। যাতে তারা এসব বিষয়কে আর হালকাভাবে না নেন। প্রতিটি ঘটনার সঠিক তদন্ত করে, দোষীদের আইনের হাতে সোপর্দ করেন। সমাজের এই ক্রমবর্ধমান দুর্বৃত্তায়ন তবেই হ্রাস পাবে।