ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

প্রত্যেকটি রাষ্টের যেখানে নিশ্চিত করার কথা তার দেশের তরুন সমাজ কে, সু শিক্ষায় শিক্ষিত করে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গোড়ে তোলা। শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করা যাতে করে তরুন সমাজের মধ্যে অন্ধকার দূর হয়ে শিক্ষার আলো পৌছে যায়। এটি প্রত্যেক রাষ্টের পরম দায়িত্বের মধ্যে একটি, তার অন্যতম কারন হচ্ছে যে রাষ্টের তরুন সমাজ যত শিক্ষিত সেই রাষ্ট তত উন্নত। আর যে দেশের তরুন সমাজ শিক্ষিত নয় সেই সমাজ অন্ধকারে নিমজ্জিত, তাই প্রতেকটি দেশ তার তরুন সমাজ কে শিক্ষিত করার লক্ষে তাদের কে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দিয়ে থাকেন। বাংলাদেশে শিমিত আকারে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকায় উচ্চশিক্ষার জন্য সুযোগ পায় না নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের অধিকাংশ ছাত্র ছাত্রিরা, এবং সেই সাথে যোগ হয় আমাদের দেশের মধ্যবিত্ত পরিবারে বেড়ে উঠা সন্তানেরা্‌,তারা শেষ পযন্ত কোন উপায় না পেয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হয়। সেই মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান দেরকে শিক্ষিত করতে তাদের বাবা মায়ের জমি, ভিটা, বাড়ি করে সহায় সম্বল হারিয়ে সন্তান কে শিক্ষিত করে তোলার যে স্বপ্ন দেখেন তা এক সময় হাড়িয়ে যায় যখন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রি নিয়ে চাকরীর দাড়ে দাড়ে কড়া নেড়ে কোন সাড়া না পাওয়া যায় তখন বাবা মায়ের সেই স্বপ্ন ধুলিশ্যাত হয়ে যায়।

আমাদের দেশে যখন শিক্ষা কে বাজারের ভোগ্য পন্যের মত ভ্যাট বসিয়ে শিক্ষাকে কলংকিত করা হয়। শিক্ষাতো কোন পন্য নয় যার জন্য ভ্যাট দিতে হবে। শিক্ষা আমাদের মৌলিক আধিকার সেই মৌলিক অধিকার আগে নিশ্চিত করুন।

আমাদের দেশটাকে আমরা সবাই ভালোবাসি। তাই আমাদের দেশের তরুন সমাজকে সু শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সু নাগরিক হয়ে গড়ে উঠার সুযোগ দিন সেই সাথে মাথা থেকে ভ্যাট নামক পুকাটা বের করে ফেলুন তা নাহলে ভ্যাটের আঘাতে একটা প্রবাদ আছেনা, সেইটা পরিবর্তন হয়ে যাবে তখন আর ”শিক্ষাই জাটির মেরুদন্ড থাকবেনা।”

তরুন………………………………..