ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

সাগর-রুনী হত্যাকাণ্ড নিয়ে অনেক কিছুই হল। যার কোনটাই কাঙ্ক্ষিত ছিলনা। প্রথমে খুনিদের ধরা নিয়ে মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর আল্টিমেটাম। এরপরের ইতিহাস একে একে সকলের জানা। বেশ কিছুদিন পূর্বে এটিএন বাংলার পরিচালকের মন্তব্য এবং পরিশেষে আজকে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতন । আমরা সব কিছুই দেখছি, সহ্য করছি কিন্তু কিছু করতে পারছি না। হ্যাঁ একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, এই বিষয় টা নিয়ে একটি কুচক্রী(কুচক্রী বললাম এ কারনে , খুন এবং নির্মম হত্যাকাণ্ড কে যারা ধামা চাপা দিয়ে সত্য কে পেছনে ঠেলে দেয় তারা কুচক্রী নয় তো কি?) মহল কিন্তু অতি সাবধানতার সাথে নিজেদের কাজ করে যাচ্ছে। আজ সাংবাদিকদের দ্বিধাবিভক্ত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। তারা কিন্তু সফল হয়ে যাচ্ছে। আর আমরা সেই আধারেই রয়ে গেছি , যেখান থেকে বের হতে পারছি না।

আজ যাদেরকে কিছু সাংবাদিক আক্রমন করেছে তারা কি ভেবে দেখেছেন, এই সাগর-রুনি কিন্তু তাদের সহযোগী ছিলেন। আর অন্য দশজনের চেয়ে তাদের কস্টটাই বেশী। তাদের নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে ও তারা শঙ্কিত। আজ যেখানে একত্রিত হয়ে এই হত্যাকান্ডের কর্মসূচী পালন করছে সকল সাংবাদিক সেখানে আজকের ঘটনা শুধু নিন্দনীয় বললে কম হয়ে যায়। এসব কর্মকাণ্ডের জন্য কারা দায়ী তা খতিয়ে দেখা উচিত।

আমাদের সাংবাদিক ভাইদের কে খেয়াল রাখতে হবে , জ ই মামুন কিংবা এ টি এন বাংলা এবং আরো কিছু পত্রিকার সাংবাদিক কে আঘাত করে সাগর রুনির হত্যাকাণ্ডের সুরাহা হবে না।বরঞ্চ সম্মিলিত আন্দোলন করে সরকারের কাছে বিচারের দাবি জানাতে হবে। সরকারের পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছে তারা আন্তরিকভাবে তদন্ত করছেন। আমি নিজে ও আজ এই হত্যাকাণ্ডের খুনীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে আশাবাদী নই। সময় পার হয়ে যাচ্ছে , আলামত এবং কোন মুটিভ আজো খুঁজে ফিরছে পুলিশ এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। সর্বোপরি এই হত্যাকাণ্ডের তদন্তের অগ্রগতি নেই বললেই চলে। সেখানে সাংবাদিক ভাইয়েরা যদি নিজেদের মাঝে দন্ধ কোলাহলে জড়িয়ে পড়ে , তাহলে তো সব শেষ হয়ে যায়।

আজকের ঘটনা নিয়ে পক্ষ বিপক্ষ দুই দল ভিন্ন ভিন্ন মতামত দিয়েছেন। আমি বলি নিজেদের মাঝে এমন কলহ শুরু হলে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত হতে পারে । আর এই ব্যাপারে সকলের বিশেষ করে সাংবাদিকদের অনেক বেশি সতর্ক থাকা উচিত বলে মনে করি। জল ঘোলা করে কি লাভ তা আমি ভেবে পাই না। আর এই জল ঘোলার কারনে প্রকৃত দোষীরা সকলের আড়ালে চলে যাবে। আর একবার আড়ালে চলে গেলে এদের বের করে আনা অতি দুঃসাধ্য হয়ে যাবে এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই। আর তখন আড়ালে বসে হাসবে সকল খুনী এবং তাদের রক্ষাকারী দল।