ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

বেশ কয়েক বছর ধরেই আরব দেশ গুলোর অবস্থা বেশী ভাল নয় । যুদ্ধ এবং নিজেদের মাঝে ক্ষমতার দ্বন্দের কারনে আরব বিশ্বের প্রায় সকল দেশে সবসাময় অস্থির অবস্থা বিরাজ করছে । এই বছরের শুরু থেকে এই অবস্থা বেশ প্রকট হয়ে দেখা দেয়।

প্রথমে তিঊনিশিয়ার প্রেসিডেন্টের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে এই অচল অবস্থার সুচনা হয় । সেই সাথে ক্ষেপে উঠে আরব বিশ্ব । এর কিছু দিন পর শুরু হয় মিশরে মোবারক বিরোধী আন্দোলন । প্রবল বিক্ষোভের মুখে মিশরের এক সময়ের জনগনের বন্ধু খ্যাত হোসনে মোবারককে ক্ষমতা ছেড়ে দিতে বাধ্য করে । হোসনে মোবারকের ক্ষমতা ছাড়ার পর বেশ কয়েক মাস হয়ে গেলেও মিশরের সাময়িক পরিস্থিতির এখন কোন উন্নতি হয়নি । জনগনের মনে এখন সন্দেহ দেখা দিচ্ছে বিদ্রোহীদের নিয়ে । আসলে এই বিক্ষোভে কার ভুমিকা প্রধান ছিল সেকথা আরব বিশ্বের সবাই জানে । কিন্তু কেউ মুখ খুলতে চায়না।
ইয়েমেন , বাহরাইন , সিরিয়ায় সরকার বিরোধী আন্দোলনে হাজার হাজার নিরিহ আরব মারা গেছে । সেই সাথে সেসব দেশে অবস্থিত নিরিহ বাংলাদেশিরা অনেক হয়রানির স্বীকার হয়েছে এবং প্রতিদিন হচ্ছে। তেল এবং গ্যাস সম্পদ হচ্ছে এই ঝামেলার মুল কারন । পশ্চিমা দেশগুলো এসব দেশের তেলকে নিজেদের কব্জায় নিয়ে নিজেদেরকে আর শক্তিশালী করতে চায় । নিজেরা সরা সরি এসব কোন্দলে না জড়িয়ে ভাইয়ে ভাইয়ে বিরোধ সৃষ্টি করেই চলছে ।

সম্প্রতি লিবিয়ায় মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে হটিয়ে সেখানে চরম অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে । সেই দেশে বসবাস কারী বেশির ভাগ বাংলাদেশী ইতিমধ্যে দেশে চলে গেছেন । আর যারা জেতে পারেননি তারা নিজেরা চরম অবস্থার মাঝে দিনযাপন করছেন। একসময় ভগবানের মত ছিল যে নেতা সেই নেতাকে ছুড়ে ফেলে দিয়ে সেই দেশে কতটুকু শান্তি ফিরে আসবে সেটা অদূর ভবিষ্যতে দেখা যাবে । আমেরিকা , ফ্রান্স, এবং বেশ কিছু ইউরোপীয় দেশ এসব যুদ্ধে অস্ত্র থেকে শুরু করে আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে নিয়মিত। তারা তাদের স্বার্থের জন্য এসব করছে । কিন্তু নিরীহ আরব’রা সে ব্যাপারেও বুঝতে পারছে না । আবার কেউ কেউ বুঝলে ও মুখ খোলার সাহস পাচ্ছে না ।

এসব পরিস্থিতির মাধ্যমে অশান্ত আরব বিশ্ব শান্ত হবে কিনা সে প্রশ্ন প্রশ্নই থেকে যায় ।