ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

আমাদের ক্রিকেট মাঝে মাঝে কাঁদায় এবং মাঝে মাঝে হাসায় এবং উল্লাসে মাতায় । বেশ কিছু ক্রিকেটারের পরিবর্তন এবং নতুন দুই মুখ নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যখন খেলতে নামে বাংলাদেশ তখন বুকটা দুরু দুরু করেছিল এবং সেই ধুকধুকানি বাড়িয়ে দেয় ইমরুল আউট হয়ে । এরপর দেখি অন্য বাংলাদেশ শাহরিয়ার নাফিস এবং তামিম যেন প্রাকটিস সেশনে চার পেটাচ্ছেন । তামিম কিছুট ডিফেন্সিভ শাহরিয়ার মারমুখী । একটা বাউন্সার যদি শাহরিয়ার কে মাঠের বাইরে না পাঠাত তাহলে চট্রগ্রামের দর্শক সুন্দর একটি জুটির খেলা দেখতে পারত অনেকক্ষণ । সেই যাই হোক পরিশেষে টস জয়ের লাকী অধিনায়ক এবং সাবেক সেই সাথে তামিম মিলে দলকে নিয়ে গেলেন ভাল অবস্থানে । শেষমেশ ৩৫০/৯ ডিঃ। এটা অনেক গৌরবের অনেক সন্মানের টেস্ট ক্রিকেটের জন্য।

এরপর বাকী যা করার তা বৃষ্টি এবং পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা দায়ী। প্রতিদিন খেলা দেখার আশা নিয়ে দর্শকের আসা এবং ফিরে যাওয়ার গল্প। আবার শুরু হল । নতুন মুখ ইলিয়াস সানি জানিয়ে দিল তাকে অন্তর্ভুক্তি এমনিতে নয়। ৯৪/৬ উইকেট নিয়ে রীতিমতো জিরো থেকে হিরো । এরপরের ইতিহাস সাহসের মুশফিক জানেন এই টেস্টে ফলাফল ড্র । তারপর ও নিলেন রিস্ক । শেষ সেশনে পাঠালেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ কে ব্যাটিং এ । ২২৬ রানের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে । এতে রিস্ক ছিল যেমন জয়ের সম্ভবনা ও ছিল । কিন্তু শেষ পর্যন্ত টেস্ট ড্র দিয়ে শেষ। কিন্তু এই ড্রয়ের মাঝে ক্রিকেট বিশ্ব দেখল অন্য বাংলাদেশকে। ধারাভাষ্যকারদের কাছ থেকে ফেল অনেক প্রশংসা । একদিন টেস্ট এবং একদিনের ক্রিকেটে বাংলাদেশ দুরজেয় হবে । আমি অপেক্ষা করি সেই সময়ের । সাবাস বাংলাদেশ সাবাস।