ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

পাকিস্তানের সাথে শেষ ওয়ানডে ম্যাচে বাংলাদেশ জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়ে তুলে ও হেরে গেল । স্টোডিয়াম ভর্তি হাজার হাজার দর্শকের মত আমি ও টিভি সেটের সামনে বসে কষ্ট পেয়েছি । যে কষ্ট কাউকে বুজানো যাবে না । একের পর এক ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়া দেখে চোখে পানি এসে গেল । বিজয়ের চল্লিশ বছরে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই জয়ে আমাদের মনোবল অনেক বেড়ে যেত। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের অসহায় আত্মসমর্পণের পরিণতি—তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হতে হয়েছে বাংলাদেশকে। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তান ১৭৭ রানে অলআউট । মাহমুদউল্লাহ-রাজ্জাকদের সেই সাফল্য ব্যাটসম্যানরা ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছেন ১১৯ রানে গুটিয়ে গিয়ে।বাংলাদেশ ইনিংসের প্রথম বলেই তামিম ইকবাল আউট । তখন হয়ত অনেকে কিছু বুঝেই উঠতে পারেননি । দলের এই ব্যর্থতার মুলে রয়েছে ব্যাটসম্যানরা । যাদের উপর আমাদের প্রত্যাশা বেশী তাঁরা বারবার আমাদের হতাশ করেছে । স্বাধীনতার পড় ক্রিকেট আমাদের অনেক পরিচিতি এবং সন্মান দিয়েছে সেই বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই । একসময় আমরা ও খেলতাম । দিনে দিনে খেলোয়াড়দের উন্নতি হয় । আর আমাদের দেশের বেলায় দেখছি এর উল্টো চিত্র । ইদানিং দলের প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং দেখলে পাড়ার ছেলেদের চেয়ে ও বেশ খারাপ মনে হয় । তাদের দায়িত্বহীনতা আমাদের ক্রিকেটকে আগামীতে প্রশ্নবিদ্ধ করবে এতে কোন সন্দেহ নাই । তখন আমাদের আফসোস করা ছাড়া কিছুই করার থাকবে না । .

চট্রগ্রামের স্টেডিয়াম আমাদের দলের জন্য অনেকটা সৌভাগ্যের প্রতীক । যেখানে শেষ চার ম্যাচের চারটিতেই বাংলাদেশ জয়ী । তাই আজ ও অনেকে সেই স্বপ্নে উজ্জীবিত হয়েছিল । বারবার ব্যর্থ ব্যাটসম্যানদের বিদায়ের পড় দর্শকদের চেহারা কেমন বিমর্ষ হয়েছে তা টিভি সেটের সামনে থেকে আমি উপলব্ধি করেছি । কত আশা নিয়ে এসেছিল তাঁরা মাঠে।

মাঝে মাঝে ক্রিকেটারদের জয়গুলো আমাদের আনন্দের বন্যায় ভাসিয়ে দেয় । আমরা ও ভাসি গড্ডালিকা প্রবাহে । কিন্তু ধারাবাহিক পারফরম্যান্স পাচ্ছি না দল থেকে । আমরা আমাদের সাধ্যমত ক্রিকেটারদের দিচ্ছি । তাই তাদের ও উচিত দলীয় কোন্দল ভুলে দেশের জন্য ভাল কিছু করা । অনেকে আবার আমার মন্তব্যেকে উল্টো ভাবতে পারেন । কিন্তু আমাদের দলের এই পারফরম্যান্স আমাদের ক্রিকেটের জন্য ভবিষ্যতে মারাত্নক ক্ষতির কারন হয়ে দাঁড়াবে । তখন চাইলেও এর সমাধান করা যাবে না । কিংবা সেই সময় থাকবে না । ক্রিকেট নিয়ে সংশ্লিষ্টদের ভাবার সময় এখন এসে গেছে । বারবার এমন পরাজয় যেমন আমাদের কাম্য নয় । কেননা তাহলে আমাদের বিজয় গুলো প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যাবে । আমরা লড়াই করে হারতে চাই অসহায় আর্তসমর্পন চাই না বারবার ।