ক্যাটেগরিঃ প্রবাস কথন

 

ভাষা আন্দোলন দেখিনি , দেখিনি মহান মুক্তিযোদ্ধ। তাতে কি কিছু আসে যায় ? স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসাবে জন্মেছি এর চেয়ে বড় কিছু আর নেই । সুদানে বছর জুড়ে যুদ্ধের পরিস্থিতি দেখে উপলব্দি করতে পারি আমাদের বীর সেনানিদের সংগ্রামের কথা । শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি সেই সকল ভাষা সৈনিক , মুক্তিযোদ্ধা এবং দেশের জন্য প্রান বিলিয়ে দেওয়া সকলকে ।

আজ বাংলায় লিখতে পারছি যাদের কল্যানে তাদের কে মন রাখতে হয় সব সময় । কিছুক্ষণ পূর্বে বেশ কয়েকজন বন্ধু মিলে প্রতীকি শহীদ মিনার বানিয়ে বাসার চাদের উপর একুশের প্রভাত ফেরী করলাম বিশ থেকে বাইশ জন বন্ধু । সৌদি আরবের আইনে এসব অনুষ্ঠান করা নিষিদ্ধ আর সেই কারনে চুপিসারে আমার মত অনেকেই করে । বেশ কিছু বাংলাদেশী আবার আমাদের নিয়ে হাসি তামাসা করে । কিন্তু আমি এবং আমার কিছু বন্ধু তাতে কিছু মনে করিনা । আমাদের কাছে দিনটি অনেক পবিত্র এবং মহাত্ন্যময়। তাই প্রবাসী বেশ কিছু বাংলাদেশীদের হাসি তামাসার পর ও একুশে ফেব্রুয়ারী উদযাপিত করেছি বলে হৃদয়ে দারুন শান্তি পাচ্ছি ।

আমি জানি দেশের বাইরে এটাই আমার শেষ একুশে ফেব্রুয়ারি । দেশ আমাকে টানছে , আমি ও শীঘ্রই দেশে ফিরছি । সেই উপলক্ষ্যে পাসপোর্ট নবায়ন করতে আমাদের রিয়াদ দুতাবাসে গিয়েছিলাম । শত শত বাংলাদেশী পাসপোর্ট নবায়নের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছে , দেখার কেউ নাই । চারটি কাউন্টারের মাঝে দুইটিতে কাজ হচ্ছে বাকী দুইটি বন্ধ। টয়লেট মাত্র দুইটি । এমন অবস্থা দেখে নিজের কাছে লজ্জা লাগে । সকাল আটটা থেকে দীর্ঘ লাইনে থেকে বিকাল সাড়ে চারটায় কাজ শেষ হয় । কন্সাল্টেনকে জিজ্ঞাসা করলাম তিনি বলেন আমাদের লোকের অভাব । আমি প্রতিউত্তরে বললাম দেশে বলেন । রিয়াদের দুতাবাস থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার রিয়াল নিচ্ছেন কাজের বিনিময়ে কিন্তু প্রবাসীদের সঠিক সেবা আপনারা দিতে পারছেন না । আমার সাথে ফিলিফাইনের এক বন্ধু ছিল । তাদের দুতাবাসে গিয়ে দেখি চকচকে সুন্দর পরিস্কার এবং পরিপাটি । তখন নিজের অজান্তেই মনে কষ্ট পাই । কিন্তু এসব কাকে বলব । বললে কি হয় । আসলে বললে ও কিছু হয়না ।

৭ই মার্চের মধ্যে সৌদি আরবে অবস্থানরত বাংলাদেশি অবৈধ নাগরিকদের কে দেশে ফেরার জন্য আঊট পাশের মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়েছেন । আউট পাশের জন্য ও বেশ ভীড় লক্ষ্য করা গেল । সরকার এত দিনে ও এসব অবৈধ লোকদের জন্য কিছুই করতে পারলো না । যেখানে ভারত এবং নেপালের লোকদের ট্রান্সপার চালু হয়ে গেছে সেখানে আমাদের দেশের জন্য কিছুই চালু হয়নি। সরকার বলছে আমাদের শ্রম বাজার বিস্তুত হচ্ছে , আমার কাছে মনে হচ্ছে সরকার দেশের শ্রম বাজারকে সঙ্কুচিত করে ফেলেছে তার ব্যারথতার কারনে ।

পরিশেষে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের জন্য হৃদয়ের গভীর থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলী দিয়ে শেষ করলাম । আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি তা ভুলিতে পারি ।