ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বেশ কয়েক বছর পূর্বে দেশে থাকার সময় নিজের ব্যবসার কাজে বাবার অনুরোধে ঢাকায় গিয়েছিলাম। সেই সময়ে ঢাকা আমার কাছে অচেনা ছিল । আমার সাথে এক বন্ধু ছিল যদি ও সে এখন একজন বড় রাজনীতিবিদ । যোগাযোগ নেই বললেই চলে । আমি নিজের মত করে চলি সেও তার মত করেই চলে । ঢাকায় সেই বন্ধুর সাথে একটি বস্তির পাশ দিয়ে হেটে যাচ্ছিলাম । সেই সময়ে বস্তির মাধ্যে দুই মহিলার মধ্যে বিশ্রী ভাষায় ঝগড়া চলছিল । তাদের ঝগড়ার বিষয় কি ছিল তা আমার জানা নেই , কিন্তু তাদের মুখের ভাষা যে কি জঘন্য ছিল তা ছাপার অযোগ্য। আমি মনে মনে ভাবতাম বস্তির মানুষ গুলো এমনি হয় । হয়তো অভাব অনটন আর কষ্টের মাঝে থাকতে থাকতে তারা এমন হয়ে গেছে । তাই তাদের কে দোষ দেওয়া যায়না। আর যায় না বলেই আমরা তাদের সযত্নে এড়িয়ে চলি ।

গত সপ্তাহে পবিত্র উমরাহ পালন করতে মদিনা এবং মক্কায় বেশীর ভাগ ব্যাস্ত সময় কাটিয়েছি । আর সেই কারনে দেশের খবর তেমন জানা হয়নি । এছাড়া সৌদি আরব থেকে এই সপ্তাহের শেষ দিকে একেবারে দেশে ফিরে আসছি তাই সামান্য কিছু কেনাকাটায় ও ব্যাস্ত থাকছি । গতকাল অনলাইনে পত্রিকা খুলে তো আক্কেলগুড়ুম । আমাদের দেশের মহান সংসদে সেই বস্তি বাসীদের মত কান গরম করা উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় । বস্তির মানুষেরা দারিদ্র এবং অসহায় । তারা সবসময় বিভিন্ন বিষয়ে ভুক্তভোগী। তাদের আচরনের মত করে নয় শুধু তাদের চেয়ে ও খারাপ এবং বিশ্রী ভাষায় সংসদের যে ভাষণের বিবরন শুনলাম তাতে আমরা আমাদের সেই সব সাংসদদের কে কি বলব?

তাদের সমস্যা কোথায় তা আমার জানা নেই । তাদেরকে খেয়াল রাখতে হবে সংসদের প্রতিটি কথা মহরতের মধ্যে দেশের সাধারন জনগনের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে বেতার এবং টেলিভিশনের কল্যানে । আর জনগন যদি সংসদের এমন ভাষণ শুনে তাহলে সংসদ সদস্যদের নিয়ে তাদের মনে কেমন ধারনা হবে ? বুঝতেই পারছেন । গতকাল ও এই অবস্থার উন্নতি হয়নি। গতকাল ও সংসদে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয় । মাননীয় স্পীকার বলেন –

‘গতকাল আসিফা আশরাফির বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সংসদে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে তাঁর বক্তব্য শেষে স্পিকার তাঁকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি যেভাবে বক্তব্য দিয়েছেন, তা ঠিক না। অখ্যাত-কুখ্যাত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নিষিদ্ধপল্লি জাতীয় শব্দ বলতে পারেন না।’

এরপর সাংসদদের উদ্দেশে স্পিকার বলেন, ‘আপনারা গঠনমূলক বক্তব্য দিলে দেশবাসী প্রশংসা করবে। আজ (সোমবার) পত্রপত্রিকায় যা ছাপা হয়েছে তা লজ্জাকর। এ রকম হওয়া উচিত না’।

আমরা চাই সংসদে সুস্থ অ যুক্তিনির্ভর আলোচনা । উত্তপ্ত এবং অশালীন বক্তব্যে সংসদ সদস্যদের কাছ থেকে আমাদের কাম্য নয় । সংসদ হয়ে উঠুক দেশের সকল সমস্যা নিরসনের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু। শুধু মাত্র সংসদ সদস্য পদ টিকিয়ে রাখার জন্য বিরোধী দল সংসদে যাবে তা ও আমাদের কাম্য নয় । সরকারি দল আর বিরোধী দলের সুস্থ আলোচনায় সংসদ মুখোরিত হয়ে উঠুক । শক্তিশালী হোক গনতন্র ।