ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

আমি ব্যথিত, মর্মাহত, অপরাধ যন্ত্রনায় কাতর। বলতে পারেন, তাতে কার কি আসে যায়। সত্যি তাই। মাননীয় অর্থমন্ত্রী- ৪০০০ হাজার টাকা তেমন কিছুই না। কি বলেন-এই টাকা কি কারো নিজস্ব সম্পত্তি, না কি আমার মত সাধারন জনগনের ? যদি জনগনের হয় তাহলে যারা দূনীতির সাথে যারা জড়িত, তাদের কে জনতার সামনেই বিচার করতে হবে। আরো দূনীতি করার জন্য আপনার মন্তব্যই কাল হয়ে দাঁড়াবে একদিন। কিন্তু আর কতদিন এভাবে চলবে দেশ?

যেখানে দূর্নীতি দমন করার কথা, সেখানে উৎসাহ প্রদান করা হচ্ছে, তাতে আপনাদের আগামী নির্বাচনে ভরাডুবির আশংঙ্কা অনেক বেশী। কারণ মানুষ আর আগের মত নেই। বিদ্যুৎ নিয়ে যা হচ্ছে তার মাশুল গুনতে হবে আগামীতে। কেন আমি ৩০০০/- টাকা বিদ্যুৎ বিল ৮০০০/- টাকা দিব? কি কারণে ?? জবাব দিবেন কি? আবার সংসদে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী সংসদে বলেন –দৈনিক ২ ঘন্টা লোডশেডিং দিতে বলেছি? এতে বিল কম হবে। যেন মানুষ ভুলে না যায় ? ঠিক বলেছেন- আপনি ৪০০০-৮০০০ মেঘাওয়াটে উন্নতি করেছেন, ভালো কথা। এই ৩.৫ বৎসরে সাথে কি আর কিছুর উন্নতি হয়েছে ?? উত্তরটা নিজে খুঁজুন ?

প্রতিদিনই তো হত্যা, গুম, ছিনতাই হচ্ছে ? এর প্রতিকার কি? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কি কোন দায়িত্ব নেই ? পুলিশের কি কোন ভুমিকা নেই? আই জি মহোদয়, পুলিশ কমিশনার কি চেয়ার বাঁচার জন্য ব্যস্ত? সময় আসছে- পরিবর্তনের, সময় আসছে সত্য বলার, সময় আসছে সাধারন মানুষের মুখ খুলবার।