ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

৪২ বৎসর পর- বাঙ্গালী জাতি নতুন করে খেতাব পেল- যাদের মা-বাবা নেই তারাই আজ শাহবাগে চিৎকার করছে দিন রাত। তারা ফ্যাসিবাদি, মুরতাদ, নওমুসলিম, আরো কত কি? সত্যি কি তাই? কথা বলার ঠং দেখুন। দাঁত বাহির করে অট্র হাসি দেখুন। বিভিন্ন প্রকার ব্যঙ্গ উক্তি করা হচ্ছে–বিভিন্ন টকশোতে। অনেকেই রঙ্গ/ব্যঙ্গ/তামাশা করছে? কোন অসুবিধা নেই। চালিয়ে যান।
সবাইকে ছোট একটা কথা বলি–শাহবাগকে যদি মনে করা হয়, দলীয়-তাহলে বিরাট ভুল করবেন। শুধু ভুলই না, মারাত্বক ভূল করবেন। সমস্ত হিসাব পাল্টে যাবে। রেজাল্ট হবে শূন্য–কারণ হলো। ইতিহাস তাই বলে।

সবে মাত্র শুরু হয়েছে, স্ফুলিঙ্গ এখনও ক্ষীণ, দাউ দাউ করে জ্বলবার আগে সংযত হউন। মাথা নীচু করেন। দম্ভোক্তি বন্ধ করুন। নতুবা এই স্ফুলিঙ্গ কাউকে ছাড় দিবে না। ৪২ বৎসর শুধুই যন্ত্রনা দিয়েছেন তিল তিল করে আঘাত করেছেন। আঘাত করেছন জাতীয় সার্বভৌমত্বকে। আঘাত করছেন সাধারণ মানুষের মনে। গ্যাস সিলিন্ডার দূর্ঘটনা হলে, জ্বলে পুড়ে মরতে হয়, দেহ হয়ে যায় ছাই, চেহারা হয়ে যায় বিকৃত। মানুষ চিনতে পারে না তার সঠিক পরিচয়। তার চেয়েও ভয়াবহ হবে, এই স্ফুলিঙ্গ বিস্ফোরণ ঘটলে। কোন অস্তিতই থাকবে ঐ দাম্ভিক উক্তিকারী ব্যক্তিদের। সাবধান হউন। সংযত হউন। নিজের অপরাধ,ভুল ভ্রান্তি সংশোধন করুন, ক্ষমা চান, সাধারণ মানুষের কাছে বার বার। যত শক্তিশালী হউন না কেন, বাঁচতে পারবেন না। রেহাই নেই। হায়েনাদের সঙ্গ ছাড়ুন যারা, দেশ, মা, বাবা, ভাই, বোনকে ভালবাসতে জানে না,তারাই নব্য ফ্যাসিবাদী।

আমি ছিলাম, আমি আছি, আমি থাকবো। যতদিন না এই বাংলা সোনার বাংলা রুপে গড়তে পারি। শাহবাগে আছি, থাকবো ততক্ষণ, যতক্ষন না তার সঠিক বিচার পাচ্ছি।
সময় আসছে—-সত্য বলার, সময় হলো অধিকার আদায়ের, পরিবর্তন হবে অতি দ্রুত।