ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

তসলিমা নাসরিন আপনাকে বলছি,
ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের উস্কে দেওয়া বন্ধ করুণ, ওদের বাঁচতে দিন। দেশ ছেড়ে আপনি ভাল আছেন, না মন্দ আছেন, তা জানি না, তবে খুব খারাপ থাকার কথা নয়। আপনি তো নিরাপদে আছেন, তো ওদের দিয়ে যা লেখাচ্ছেন সেগুলো নিজে কেন লিখছেন না? নিজে মানে- লোক ভাড়া করেও তো ওগুলো লেখানো যায়। মুখস্থ কিছু কথা। সারেগামাপাধানিছা ছানিধাপামাগারেছা। এই লিখতে লেখক হওয়া লাগে? এইসব লেখানোর প্রয়োজন আছে মনে করলে দশজন লোক নিয়োগ দিয়ে তাদের দিয়ে নিরলস লিখিয়ে যান।

দেশের অবস্থা জানেন না? যে দেশে নিজে থাকতে পারেননি, যে দেশে আপনার মত পরাক্রমশালী একজন লেখক থাকতে পারেনি, সেদেশে ঐসব ছাইছাতা লিখে ছোট ছোট ছেলেগুলো কীভাবে থাকবে?
আপনার জীবন নানান ঢঙে কেটেছে, খুব দুঃখে কেটেছে বলে আমি অবগত নই। এসেছিলেনও একটি স্বচ্ছল পরিবার থেকে, মেডিকেলের ছাত্রী হিসেবেও সমাজের কাছ থেকে প্রথম দিকে কিছু সফট কর্নার পেয়েছেন। জীবন আপনার সুখেই কেটেছে বলে বিশ্বাস করি, এখনও আপিন সুখে আছেন, নিশ্চিন্তে আছেন। এটা আমার ধারণা, ধারণা ভুলও হতে পারে।

আপনার অনেক লেখা প্রশংসাযোগ্য, তবে সেরকম লেখা খুবই কম, আপনি নিজেকে একজন এক্টিভিস্ট দাবী করলে ব্যক্তিগতভাবে আমি স্বস্তিবোধ করি। আপনার প্রতিবাদ করার ক্ষমতা আছে, সাহসও আছে, তবে আপনার অহংবোধ এবং অপরিণামদর্শিতা নিন্দনীয়।

আপনি শান্তিতে থাকেন, লেখালেখি করেন, এটা চাই। তবে একটা অনুগ্রহ আপনি করেন, ছেলেদেরকে বলেন, তারা যাতে চাপাতি উস্কে না দেয়, আপনিও ওখান থেকে উস্কানি দেওয়া বন্ধ করেন। খুব মারাত্মক একটা সমাজ ব্যবস্থার মধ্যে থেকে থেকে এমনিতেই দম বন্ধ হয়ে আসছে, তার উপর এরকম নৃশংস হত্যাকাণ্ড দেখতে আর ভাল লাগে না। প্লিজ, আর না। আপনার আর বাংলাদেশের সংস্কার করা লাগবে না। এখন দয়া করে চুপ যান ।