ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

ডাক্তার সাহেবদের নিয়ে এই সিরিজ লিখি আর ভাবি, এটা চলিয়ে কি হবে। তাই ডাক্তার সাহেবদের অনেক ঘটনা দেখলেও আর লিখতে ইচ্ছা হয় না, আর কি হবে বটে! কিন্তু কিবোর্ড থামানো মুসকিল। আজ দিনের বেলায় এমন একটা ঘটনা ঘটল যে, না লিখে আর পারলাম না! বিষয়টা সাধারন, কিন্তু আমার কাছে অসাধারণ লেগেছে। আপনাদের কাছেও সাধারন লাগতে পারে!

তিনি অত্যন্ত বড় ডাক্তার। এক নামে সারা বাংলাদেশের সবাই চিনেন। সরকারী চাকুরীর ফাঁকে (!) আমাদের সাথে কাজ করেন মানে আমাদের এখানে তার একটা চেম্বার আছে। বিকালে রোগী দেখেন। প্রায় ৪০/৪৫ টা রোগী হয় প্রতিদিন। ভিজিট ৫০০ টাকা (জিনিষ পত্রের দামের সাথে তিনিও তার ফী বাড়াবেন বলে জানিয়েছেন, আগামীতে ৭০০ টাকা হবে হয়ত)। ৪০ গুন ৫০০ = ২০,০০০/- পার ডে রোগী দেখে কামাই করেন! সে যাই হোক, তিনি পড়াশুনা করে নাম কামিয়েছেন, তিনি টাকা কামাবেন না তো আমি কামাব!

কোম্পানীর একটা কাজে আজ দুপুরের দিকে তাকে আমার ফোন করতে হল। অনেক ক্ষন বেজে বেজে থেমে গেল। আমি বুঝলাম তিনি হয়ত কাজে ব্যস্ত আছেন। এরপর মিনিট বিশেক পরে আমি আবার ফোন করলাম, একি অবস্থা হল। এদিকে উক্ত বিষয়ে আমাকে আমাদের এমডি স্যারকে জানাতে হবে! আমি টেনশনে আছি। আবার মিনিট বিশেক পরে আবার কল করলাম। না, আবারো এমন অবস্থা! ফোন ধরেন না। মনকে সান্ত্বনা দিলাম, হয়ত তিনি অপরিচিত নাম্বার বলে ফোন ধরছেন না কিংবা কোন কাজে ব্যস্ত আছেন। যাই হোক, মনে মনে সিদ্বান্ত নিলাম – আর মিনিট বিশেক পর আবার চেষ্টা করে এমডি স্যার কে জানিয়ে দিব। তার সাথে কথা বলতে পারি নাই!

এর মাঝে দেখি উক্ত ডাক্তার সাহেব আমাকে মিস কল দিলেন (মিস কল কাকে বলে আমি জানি)! আমি তার মিস কল পেয়ে অবাক হলাম। ভাবলাম, আমার ভুল হচ্ছে বিষয়টা দেখার জন্য আমি পুনরায় কল না করে বসে থাকলাম। দেখি তিনি কল করেন কি না! ওমা, একি, মিনিট পাঁচেক পর, এ যে আবার মিস কল! আমি আবারো সামান্য সময় অপেক্ষা করে তার কোন কল না পেয়ে তাকে ফোন কল করি!

তিনি ফোন ধরেন এবং আমি আমার পরিচয় দিলে তিনি আমাকে চিনতে পারেন (কারণ পূর্বে মোবাইলে কথা না হলেও দেখা হয়েছে অনেকবার)। আমি তাকে হাসির ছলে মোবাইলে মিস কলের কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, যার প্রয়োজন সে কল করবে, আমি কেন কল করব!

মনে মনে বলি, হায়রে মিস কল ডাক্তার!