ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের নামে জনগণ কে বোকা বানানো হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু যুদ্ধাপরাধীদেরকে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিলেন কেন? ১৯৯৬ সালে রাজকার/যুদ্ধাপরাধীদেরকে সাথে নিয়ে আন্দোলন করে তৎকালীন বিএনপি সরকারকে হটিয়ে দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করল না কেন? দ্বাধীনতার ঘষক পরিবার দুই-দুইবার ক্ষমতা পাওয়ার পরেও এই বিচার করার প্রয়োজনিয়তা অনুভব করল না কেন?

—ওরা কেবল নিজেদের স্বার্থ-চিন্তায় মশগুল। এই বিচারে কার লাভ? দেশের কৃ্ষক, শ্রমিক, মজুর এই বিচার হলে কোন্ ক্ষেত্রে লাভবান হবে? বিচার না হলেইবা তাদের কি লাভ? আন্তর্জাতিকভাবে এই বিচার কারা চায়; কারা চায় না?

—এই বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে ভারতের সরাসরি হস্তক্ষেপে। এখন যদি এই বিচার সুসম্পন্ন হয় তবে ভারতের লাভ বেশি; কারণ, এই বিচার করতে গিয়ে অনেক দেশের রোষানলে পরে গিয়েছে বাংলাদেশ। অনেক দেশ থেকে (বিশেষ করে মিডেল ইস্ট থেকে) বাংলাদেশিদেরকে বের করে দেয়া হচ্ছে; কাজের জন্য ভিসা দেয়া হচ্ছে না।
চমৎকার টেকনিক!

বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে আরো ভেঙ্গে পড়লে প্রতিবেশি দেশ ভারতের ওপর পূরোপুরি নির্ভর করবে আর ভারত সুচারুভাবে বাংলাদেশকে (পারমানেন্টলি) দাস বানিয়ে রাখতে পারবে।
পরবর্তী সরকার গঠনের ক্ষেত্রে ভারত পূণরায় আওয়ামী লীগকে সুযোগ দেবে কিনা তা বর্তমান সরকারের শেষ মুহূর্তের আনুগত্য/কার্যক্রমের ওপর নির্ভর করছে। তবে তৃতীয় কোন রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপের বিষয়টিও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

শেষ দৃশ্য দেখার জন্য এখনো প্রায় দেড় বছর অপেক্ষা করতে হবে।

জোট-মহাজোট, রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করে দিয়েছে। দেশ এখন ২ ভাগে বিভক্ত। এক ভাগ জিয়া পরিবার ভিত্তিক সমর্থক আরেকভাগ বঙ্গবন্ধু পরিবার ভিত্তিক সমর্থক (মাঝখানে এক ভাগ সমালোচক গোষ্ঠী রয়েছে যারা শুধু প্রতিবাদ করে যায় এই ২ পরিবারের বিরুদ্ধে)। জনগণের কোন প্রকার চাওয়া পাওয়ার মূল্যায়ন এই ৪১ বছরে হয়নি;আজ বঙ্গবন্ধু, জিয়া কে তাদের পরিবার ব্যাবহার করে চলেছে রাজনীতিতে। পরিবারের কারণে তারা জীবিত কিন্তু আমাদের দেশে তাদের থেকেও বড় নেতা ছিলেন যাঁদের কথা নাম মাত্রই শুধু বলা হয় কারণ তাদের পরিবার তাদের কৃতিত্ব ধরে রাখার মত তেমন কিছুই করেনি। অতএব, রাজনীতি; নেতানেত্রী এসব এখন বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে পরিবারতান্ত্রিক হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশে ৯০ এর স্বৈরতন্ত্রের অবসানের পর থেকে পালাবদলের সরকার শাসন চলছে; হিরক রানীর দেশে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ । কোন্ রানী কখন দেশে শাসনের ভার নেয় সেটাই শুধু জনগণ চেয়ে চেয়ে দেখবে..