ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

 

খুবতো সারাদিন খালি ফেরেন্ডশিপ ফেরেন্ডশিপ কইরা কাটাইলেন এবার আসেন একটা গল্পশুনি। একবার এক ক্ষুধার্ত নেকড়ে একটা ঝর্ণার ধারে বসে পানি খাচ্ছিল। কিছুক্ষন বাদে একটা খরগোশও এল সেই ঝর্ণার পানি খেতে। নেকড়ে যেখানে পানি খাচ্ছিল খরগোশ তার অনেক নিচে পানি খাচ্ছিল। চোখের সামনে এমন একটা তরতাজা খরগোশ দেখে ক্ষুধার্ত নেকড়ের জিবে জল এসে গেল!
সে ফঁন্দি আটতে লাগলো কিভাবে খরগোশটাকে খাওয়া যায়। কিছুক্ষন ভেবেচিন্তে ধুম করে খরগোশের সামনে এসে হুঙ্কার দিয়ে বলল,“ঔ খরগোইশ্শার বাচ্চাআআআআ…তোর এত বড় সাহস! তুই আমার খাবার পানি ঘোলা করলি ক্যান? দাড়া তোরে এহনই আমি খাইয়ালাম!” হঠাৎ করে চোখের সামনে সাক্ষাত জম দেখে খরগোশের বাচ্চাটা ভয়ে কাঁপতে লাগলো।
সে কাচুমাচু করে বলল,“আলামপানা, আমি ক্যামতে আপনার পানি ঘোলা করলাম? আপনিতো আমার উপরে পানি খাইতাছিলেন। আমিতো আপনার অনেক নিচে আছলাম…”
এইবার নেকড়ে ধপকরে খরগোশের কল্লাটা ধরে বলল, “চুপ থাক বেয়াদব কোথাকার! আবার মুখে মুখে তর্ক করিস? বাড়ি কোথায়? গোপালী? :p
তুই না করলে তোর বাপ করছে…না হয় তার বাপ করছে…”
তারপর খরগোশটাকে খেয়ে পুনরায় ঝর্ণার পানি পান করে তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে তুলতে বলল,“নাহ্ আজকাল পোলাপাইন গুলা বড্ড বেদ্দপ হই গ্যাছে…”

মরাল: ক্ষমতাওয়ালারা এই ভাবেই ক্ষমতাহীনদের গ্রাস করে!