ক্যাটেগরিঃ জানা-অজানা

 

… বি এ এফ শাহীন স্কুলে ক্লাস নাইনে এসে যখন ভর্তি হলাম তখন এডমিন থেকে আমাকে আর্টসে ভর্তি করিয়ে দিল। কারন, সাইন্স-এ ছিল ৮০ জনের উপরে ছাত্র-ছাত্রী, আর আর্টসে আমি সহ মাত্র ১৭ জন। আহমেদ শরিফ সাদিক নামে সাইন্সের এক ছেলে একদিন আমাকে বলে “দোস্ত আর্টস ডিপার্টমেন্টতো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। তুই কি করবি তখন?”এই শুনে আমি স্তম্ভিত। ব্যাপারটা শেয়ার করলাম দুই বন্ধুর সাথে। তিন জন মিলে শরিফকে চার্জ করলাম। শরিফ বলে, “শোন, আমার বাবা এয়ারফোর্সে, আমি ভেতরের খবর জানি। এ বছর আর আর্টস থাকবে না। তোদের এক বছর গ্যাপ যাবে।” আমরা তিনজন ভয় পেয়ে গেলাম। মুখ শুকনা করে ঘুরতে লাগলাম। পরে ক্লাস টিচার আছির উদ্দিন স্যারকে যেয়ে জিজ্ঞাস করলাম। উনি বললেন, “কোন পাগলে তোমাদের বলছে এই কথা?” আমরা ঠিক করলাম শরিফ সাদিককে কঠিন মাইর লাগাবো। মাইর দিতে গেছি; ও বলে “দোস্ত, তোরা যেন সাইন্সে চলে আসিস এজন্য চাপা মারছি।”

তো এই হল আহমেদ শরিফ সাদিক। সে একটা আপাদমস্তক বিজ্ঞান-মনস্ক মানুষ। এখনো বিজ্ঞানের ঘোরে আছে। সুযোগ পেলেই বিজ্ঞান নিয়ে নাড়াচারা করে। প্যারালাল ইউনিভার্স নিয়ে, গ্র্যাভিটি নিয়ে, স্পেসটাইম নিয়ে, ফোর ডাইমেনশনাল ওয়ার্ল্ড নিয়ে চিন্তা করে, লেখালেখি করে, ফেসবুকে পোষ্ট দেয়। এই শরিফ সাদিক বাংলাদেশের সর্বপ্রথম সাইন্স ফিকশন কনভেনশন অর্গানাইজ করতে যাচ্ছে সেপ্টেম্বরের ৩ থেকে ৫ পর্যন্ত। তার এই প্রদর্শনীতে মার্ভেল এবং ডিসি পাবলিকেশনের সব সুপারহিরোরা থাকবে। থাকবে ইটি, থাকবে ব্যাটম্যানের উরাধুরা মোটরসাইকেল, বিজ্ঞান-মনস্করা যাকে ব্যাটপড বলে। থাকবে রোবোট, থাকবে স্টারট্রেক এর নভোচারীরা।একটা বুথও নাকি থাকবে, যেখানে বিল গেটস্ এবং স্টিভ জবস্ এর সাথে কথা বলা যাবে, ঝগড়া করা যাবে।

আহমেদ শরিফ সাদিক ওর সবটুকু পরিশ্রম ঢেলে দিয়েছে এই সাইন্স ফিকশন কনভেনশনের পেছনে। ওর সপ্ন বাংলাদেশে একটি নতুন ধারা তৈরী করা।ওর সপ্ন এই প্রজন্মকে আরও বেশী বিজ্ঞান-মনস্ক করে তোলা। আমি আর্টসের ছাত্র, আমি বুঝি কলা! আর কাঁঠাল। তবু আমি উদগ্রিব হয়ে বসে আছি এই সাইন্স ফিকশন কনভেনশনের জন্য। আমি আহমেদ শরিফ সাদিক এর স্বপ্ন পুরনের অংশ হতে চাই।

এখানে সেই সাইন্স ফিকশন কনভেনশনের ফেইসবুক পেইজ তা শেয়ার করলাম – Science-Fiction Convention। আমার মতো যারা ইটি, ব্যাটম্যান বা স্টারট্রেক এর নভোচারীদের সাথে দেখা করতে চান, তারা ঢু দিতে পারেন  গুলশান ১ এর Emmanuelle’s Banquet Hall ৩ সেপ্টেম্বর বেলা ১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এবং ৪ ও ৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত।