ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

cm1
“দুনিয়ার মজদুর এক ” শ্লোগানে যিনি পৃথিবীর সমগ্র শোষিত-বঞ্চিত খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষকে তাদের ন্যায্য অধিকারের আদায়ের জন্য আমৃত্যু সংগ্রাম করেছেন । তিনি আর কেউ নন তিনি ই হলেন প্রখ্যাত দার্শনিক প্রভাবশালী জার্মান সমাজ বিজ্ঞানী ও বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা কার্ল মার্ক্স যার পূরো না কার্ল হাইনরিশ মার্ক্স । আজ ৫ই মে এই মহামানবের ১৯৭তম জন্মবার্ষিকী । ১৮১৮ এই দিন এই মহা মানব প্রুশিয়া সম্রাজ্যের নিম্ন রাইন প্রদেশের অন্তর্গত ট্রাইয়ার ( Trier ) নামক স্থানে এক ইহুদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পরিবারের নয় সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। বাবা হাইনরিশ মার্ক্স এমন এক বংশের লোক যে বংশের পূর্বপুরুষেরা রাব্বি ছিলেন। অবশ্য তাদের মধ্যে অতিবর্তী ঈশ্বরবাদ এবং আলোকময়তার যুগের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। তাদের অনেকেই ভলতেয়ার ও রুসোর মত দার্শনিকদের প্রশংসা করতেন। যদি ও জবীদ্দশায় সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের কাছে সেভাবে পরিচিত ছিল না কার্ল মার্ক্সের । বিংশ শতাব্দীতে সমগ্র মানব সভ্যতা মার্ক্সের তত্ত্ব দ্বারা প্রবলভাবে আলোড়িত হয়। সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতন্ত্রের পতনের পর এ তত্ত্বের জনপ্রিয়তা কমে গেলেও তাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে মার্ক্সবাদ এখনও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । পূজিবাদী বুজুরে সমাজের ধারনা তাদের আগ্রসনে হয়তো মার্ক্সিজমের সমাপ্তি ঘটতে বসেছে । কিন্তু মার্ক্স অর্থনৈতিক শোষণ এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে যে প্রতিবাদ ও সমালোচনা করেছিলেন, বর্তমান বিশ্ব আর্থিক সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে তা খুবই বাস্তবে পরিনত হয়েছে ৷ মার্ক্স যদি ও সমাজ পরিবর্তনের কোনো ফর্মুলা দিয়ে যান নি তার পরও তিনি সমাজ পরিবর্তনের সমালোচনা মূলক বিশ্লেষণের একটা পন্থা দেখিয়েছিলেন৷ তাই আজ পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে সমাজতন্ত্রের পতনের পর ধনতন্ত্রের ভবিষ্যত কি তা নিয়ে আজ চরম অনিশ্চিত সৃষ্টি হয়েছে । ধনতন্ত্র বিভিন্ন যুগে বিভিন্ন ভাবে নিজেকে প্রকাশ করে আসছে আর তার ই আগ্রসনের শিকার হচ্ছে শোষিত-বঞ্চিত খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষেরা । ধনতন্ত্র বাদী সমাজ বা রাষ্ট্র আজ ব্যস্ত হয়ে পরেছে তাদের পূজিবাদীদের স্বার্থ রক্ষায় । আর এর বিরুদ্ধে আন্দোলন এখনো একটা আকার ধারন করছে । তবে অদূর ভবিষ্যতে এ আন্দোলন যে চরম আকার ধারন করবেন সে সম্ভবনা কোন ভাবেই উড়িয়ে দেওয়া যায় না । তাই আজ মহান দার্শনিক, সমাজ বিজ্ঞানী ও মার্ক্সবাদের প্রবক্তা কার্ল মার্ক্সের ১৯৭তম জন্মদিনে তার প্রতি রহিল আমদের অকৃতিম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। সেই সাথে প্রত্যশা জয় হউক মার্ক্সবাদের জয় হউক এদেশের শোষিত-বঞ্চিত খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষের ।