ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

সত্যি সেলুকাস, কী বিচিত্র এই রাজনীতি। উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হতে পারে, কিন্তু শীর্ষ স্থানীয় নেতাদের মুখে এই ধরনের বাক্য বেমানান। বিশেষ করে যখন এই বক্তব্য গণমাধ্যমের কল্যাণে সারা দেশের মানুষের কাছে পৌছে যাবে তখন এর প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে ?

রাজনীতির কৌশল যদি হয় বুদ্ধির চেয়ে শরীরের তাকড় তাহলে একটা সময় আসবে তখন মানুষ আর রাজনীতিবিদদের বিশ্বাস করবে না। ইদানিং কালে খেয়াল করা যাচ্ছে বিএনপি-জামায়াত এর আঠারো দলীয় জোটের শীর্ষ স্থানীয় নেতাদের কথার মাফ কাঠি সরকার দলীয় মন্ত্রী-এমপিদের চেয়ে ভয়াবহ আক্রমণাত্মক। যা জনমনে সন্দেহ পোষণ করার খোরাক তৈরি করে দেয়, যে যদি বিএনপি-জামায়াত এর আঠারো দলীয় নেতারা কখনো ক্ষমতায় আসে তাহলে দেশের অবস্থা কতখানি ভয়াবহ হবে। মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা কতটুকু হিংস্র হবে?

আমি মোটেই মেনে নিতে পারছি না, সংসদের বিরোধী দলীয় নেত্রীর উপস্থিতিতে একটি পরজীবী রাজনৈতিক দল জামায়াত ইসলামীর তৃতীয় সারির একটি নেতা কী করে প্রধানমন্ত্রী কে প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়ে বলেছে, আপনার জীবন অবসান পর্যন্ত হতে পারে। কে দিয়েছে এই সাহস ?

ঠিক আছে বিরোধী দলের তত্ত্বাবধায়ক সরকার দাবি এটা তাদের রাজনৈতিক অধিকার, কিন্তু ভরা জনসভায় একটা দেশের প্রধানমন্ত্রীকে কী করে স্বাধীন বাংলাদেশ বিরোধী রাজাকার ঘাতক চক্রের একজন তৃতীয় সারির নেতা এই হুমকি দিলেন ? বেগম খালেদা জিয়ার মনে রাখা প্রয়োজন ছিল আজকে প্রধানমন্ত্রী কে জামায়াত এর একজন নেতা যে হুমকি দিয়েছে, আগামীকাল বেগম খালেদা জিয়াকে ও এইরকম হুমকি দিতে পারে। কারণ এরা(জামায়াত) কাল কেউটের দল, এরা এদের নিজেদের স্বার্থের জন্য সকল কিছু করতে পারে।

যখন বিএনপি ও বেগম জিয়ার কাছে থেকে সকল স্বার্থ আদায় করে নিবে জামায়াত তখন বেগম জিয়াকে এই ধরনের হুমকি যে দিবে না, এটার গ্যারান্টি কী?