ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

সৌদি শাসন ব্যবস্থার আরেকটি অমানবিক ভিডিও ক্লিফ আমি এই ব্লগে দিলাম। তার উপর ভিত্তি করে সৌদি শাসন ব্যবস্থাকে আমরা দুইটি ভাগে ভাগ করে বিবেচনা করতে পারি।
() সৌদি শাসন ব্যবস্থা বনাম সারা বিশ্বের মুসলিম/ অমুসলিম দেশের শাসন ব্যবস্থা।
() সৌদি শাসন ব্যবস্থা বনাম অন্যান্য ইসলামী দেশের শাসন ব্যবস্থা।

() সৌদি শাসন ব্যবস্থা বনাম সারা বিশ্বের মুসলিম/ অমুসলিম দেশের শাসন ব্যবস্থাঃ সৌদিরা বর্তমান যুগে থেকেও যে শাসন ব্যবস্থা দেখাচ্ছে তা দেখে যে কোন কোমল মনের মানুষই আতঙ্কিত হয়ে উঠবে। এমনকি হার্ট স্ট্রোক করে মারাও যায়তে পারে। কারন তারা ইসলামের নামে যে অমানবিক বিচার ব্যবস্থা কায়েম করে যাচ্ছে তা কোন সভ্য জাতের / দেশের রাষ্ট্রীয় শাসন ব্যবস্থার মধ্যে পরেনা। তা কেবলই নাটকীয়তা। কারন এক মাত্র এই পাষণ্ড সৌদিরা ছাড়া বিশ্বের আর কোন দেশেই এই অমানবিক কর্মকাণ্ড রাষ্ট্রীয়ভাবে পালিত হয় না। সারা বিশ্বের মুসলিম/ অমুসলিম সকল দেশের শাসন ব্যবস্থার সাথে তুলানা করলে কোন একটার সাথেও তাদের সাথে মিলেনা। আমারা জানি একমাত্র ইসলাম ধর্ম ছাড়া অন্য সব ধর্মেই কিছু কিছু ভুল দিক নির্দেশনা রয়েছে। তা সত্ত্বেও অন্য কোন ধর্মের শাসন ব্যবস্থায় এই রকম জনসম্মুখে রাষ্ট্রীয়ভাবে মানুষ হত্যা করা হয়না। যে সমস্থ ধর্মের কোন একটা নির্দিষ্ট ভিত্তিও নাই, কেউ পূজা করে নিজের বানানো মূর্তিকে, কেউ পূজা করে নির্দিষ্ট একটা গাছকে, কিন্তু তারাও এই জানোয়ার সৌদিদের মত শাসনের নামে জনসম্মুখে মানুষ হত্যা করেনা। খুনের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড ঠিক আছে। কিন্তু তা ও তো বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে কিছু কিছু ভাল মন্দ বিষয় বিবেচনায় আনা দরকার। হিন্দুরা যে ভাবে ছাগল/ ফাঁদা কাটে সে ভাবে এক কুপ দিয়ে মানুষের মাতা কেটে ফেলা এত সহজে। এটা দেখতে কেমন লাগে? যেখানে ইউরোপের বিধর্মী কত গুলো দেশে শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডটাই বাতিল করা হয়েছে, সেখানে শান্তির ধর্ম ইসলামের দোহায় দিয়ে জনসম্মুখে মানুষ হত্যা করছে সৌদিরা। আমারা সবায় দেখেছি কিছু দিন আগে নরওয়ের একটা লোক অস্ত্র হাতে নিয়ে সমুদ্র সৈকতে ১০৪ জনের মত লোককে হত্যা করেছে। তাহলে সৌদি শাসন মতে তার বিচার কি হত আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানেনা। আর নরওয়ে কর্তৃপক্ষ করল যে, সে কেন এত লোক হত্যা করল, কেন তার মধ্যে এই হত্যার নেশা জাগল, এবং এই ভাবে মানুষ হত্যাটা যে খারাপ, সেটা সে কেন ভুলে গেল, তা বেড় করে তার চিকিৎসা করতে হবে এবং তাকে সুস্থ করে তুলতে হবে। অর্থাৎ তার হারিয়ে যাওয়া মানসিক ভারসাম্য চিকিৎসার মাধ্যমে ফিরিয়ে আনতে হবে যাতে সে আর এই কাজ না করে। এবং বর্তমানে তার চিকিৎসা চলছে। আর একই যুগে সৌদিরা কি করছে? জনসম্মুখে মানুষ কাটার একটা হিংস্র প্রচলন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিল।
তারা অন্তত পক্ষে তাদেরকে সরকারী নির্দিষ্ট কোন ঘরের ভেতর মাতা কাটতে পারত। পরে লাশটা যা করার করত। তাহলে অন্ততপক্ষে বর্তমানে ৮ বাঙ্গালী ও সৌদিদের নিয়ে সারা বিশ্বে যে নিন্দার ঝর উঠেছে সেটা হতনা। এবং আমার মত এই রকম একজন ক্ষুদে সমালোচকও এইভাবে জ্বলে ওঠতনা ।

() সৌদি শাসন ব্যবস্থা বনাম অন্যান্য ইসলামী দেশের শাসন ব্যবস্থাঃ সৌদিরা যদি বলে ইসলাম, তাহলে প্রস্নঃ
প্রশ্নঃ এক মাত্র এই সৌদি ছাড়া বিশ্বে কি আর কোন ইসলামী রাষ্ট্র নেই?
প্রশ্নঃ আর কোথাও কি ইসলামী দেশে শাসন ব্যবস্থা নেই?
প্রশ্নঃ এক মাত্র সৌদিরা ছাড়া কি আর কোন দেশের লোকজন ইসলাম জানেনা?
প্রশ্নঃ এক মাত্র এই সৌদিরাই কি শুধু আল্লাহ চেনে?
প্রশ্নঃ এই সৌদিরা ইসলামের নামে যুগ যুগ ধরে নির্মমভাবে মানুষ কাটার পরও কেন তাদের দেশ এত অপরাধ প্রবন?? কেন তাদেরকে এখনো প্রতি জুমার নামাজের পর অপরাধীদের প্রকাশ্য ফাঁসি/ মাথা কাটতে হয়?
প্রশ্নঃ ইসলাম কি শুধু এই সৌদিরাই বুঝে? আর কেউ বুঝেনা?
প্রশ্নঃ পবিত্র কোরআন হাদিস কি শুধু এই জঙ্গলি সৌদিতে আছে আর কোথাও নেই?

ইসলামের নাম ব্যবহারকারী এই রকম কুলাঙ্গার শাসন ব্যবস্থাও আর কোথাও নেই। কারন তারা নিজেদের মত করেই ইসলামী শাসন বাস্তবায়ন করে। অর্থাৎ নিজেদের স্বার্থের জন্য তারা ইসলামকেও বয়কট করতে পারে। যেমনঃ ২০০০ সালের ডিসেম্বর মাসে সৌদি সরকার উইলিয়াম স্যাম্পসন নামে একজন ব্রিটিশ কানাডিয়ান নাগরিককে সন্ত্রাসবাদ, গোয়েন্দাবৃত্তি ও খুনের দায়ে গ্রেফতার করে। কিন্তু তার প্রায় দুই বছর পর ২০০৩ সালের আগস্ট মাসে সৌদি সরকার ব্রিটিশ ও কানাডিয়ান সরকারের চাপের মুখে উইলিয়াম কে কোনরকম বিচার ছাড়াই তার আরো কয়েকজন সহযোগীসহ ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় সৌদি সরকার।সেইদিন খুনের দায়ে তাদের শিরচ্ছেদ করার শরিয়াহ আইন কোথায় ছিল? শিরচ্ছেদ তো দূরে থাক, বিচার করার মত সাহস ও তাদের ছিলনা। কিন্তু আমাদের ৮ বাংলাদেশীকে তারা আইনজীবী নিয়োগের সময়/ সুযোগটাও দিলনা। এইটাও কি ইসলামী আদর্শ? হায়রে ভণ্ড সৌদি সরকারের শরিয়া আইন! এই সৌদিরা আসলেই ভণ্ড। তারা ইসলাম কায়েম করার জন্য ইসলাম শব্দটা ব্যবহার করেনা। তারা তাদের অপকর্ম/ ভণ্ডামি/ নির্মমভাবে মানুষ কাটা/ ইত্যাদি ইসলামের ঘারে চাপানোর জন্য ইসলাম শব্দটা ব্যবহার করে। তারা যদি সত্যিকারের ইসলাম মানত, তাহলে ইসলাম ধর্মের দিক নির্দেশক আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) দেওয়া নাম ‘ আল হিজাজ’ নামটা বাদ দিয়ে সৌদি রাজাদের নাম অনুসারে সৌদি আরব রাখল কেন??????????????? ইসলামে রাজতন্ত্র নিষিদ্ধ থাকা স্বত্বেও কেন সৌদিআরবে এখনো রাজতন্ত্র চলছে?????? এবং ইসলামে কি আছে একটি মুসলিম রাষ্ট্র ইরাকটাকে ধ্বংস করার জন্য ইহুদী মার্কিনীদের নিজের ভুমি ব্যবহার সহ সার্বিক সহযোগিতা করা? ইসলামের কোন পাতায় আছে তা???? প্রশ্ন সৌদি এবং সৌদিপন্থি উগ্রবাদী ইসলামী জানোয়ারদের কাছে