ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

Bangladesh+players+celebrate+their+win+over+England,+knocking+them+out+of+the+Cricket+World+Cup+tournament+in+Adelaide

বাংলাদেশ ক্রিকেট বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে গেল প্রথমবারের মতো। সারা দেশ আজ টিভির সামনে ছিল, দারুণ উপভোগ করেছে বাংলাদেশের খেলা। কিন্তু আমাদের আনন্দের সময় কিছু মানুষকে কি আমরা বাদ দিয়ে দেই আমাদের হিসাব থেকে?

সপ্তাহখানেক আগে বিবিসি বাংলার খবরে শুনলাম, ভারতের এক আদালত (সম্ভবত ত্রিপুরায়) এক রায়ে বলেছে কয়েদিদের বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলা দেখার অধিকার আছে। এই রায়ের পর ওই রাজ্যের কারাগারগুলোর কর্তৃপক্ষ কয়েদিদের ক্রিকেট বিশ্বকাপের খেলা দেখার ব্যবস্থা করেছে।

শুরুতে বলেছিলাম, আমরা কি আমাদের বেশ কিছু মানুষকে এই আনন্দের মধ্যে বাদ দিয়েছি? তাদের কথা ভুলে গেছি? আমাদের সাধারণ কয়েদিরা কি ক্রিকেট বিশ্বকাপ দেখছে? আমি নিশ্চিতভাবে জানি না। কিন্তু না জানলেও এই দেশকে যতোটা চিনি তাতে নিরাপদেই বলা যায় – না, ওই মানুষগুলোর জন্য খেলা দেখার ব্যবস্থা করা হয়নি।

নোয়াখালী অঞ্চলের একটা প্রবচন এরকম – “ছডি (চটি) জুতার আবার ফিতা!”। খুব অসম্ভব, অকল্পনীয় বিলাসী প্রত্যাশা করার ক্ষেত্রে এই প্রবচনটি খুব ব্যবহৃত হয়। আমি জানি, কয়েদিদের জন্য বিশ্বকাপ খেলা দেখার আয়োজন করাকে অনেকের কাছেই চটি জুতার জন্য ফিতার প্রত্যাশার মতোই মনে হবে।

আমাদের অনেকেই ভাববো, কয়েদিদেরকে জেলখানায় পাঠানোই তো হয়েছে শাস্তি দেয়ার জন্য। তাই ওদের জন্য খেলা দেখে আনন্দ পাবার প্রস্তাব তাদের শাস্তিকে লঘু করে দেবে। আর কেউ কেউ ভাববেন ঘৃণিত ওই অপরাধীদের জন্য এমনভাবে ভাবার কী আছে! ওরা পচে গলে মরুক ওই জেলখানায়। আমরা তো সেই জাতি যারা সামান্য পকেটমারকে হাতেনাতে ধরতে পারলে পিটিয়ে মেরে ফেলি।

আমরা যারা মনে করি শাস্তি দিয়ে আর শাস্তি দেবার ভয় দেখিয়ে সমাজকে অপরাধমুক্ত করা যাবে তার ভয়ঙ্কর ভ্রান্তির মধ্যে আছি। ক্রিমিনোলজির (বিশেষ করে সাইকোলজিক্যাল ক্রিমিনোলজি) কিছু ব্যাসিক ধারণা নিলেই আমরা দেখবো শাস্তি আর শাস্তির ভীতি কখনো মানুষকে অপরাধ থেকে দূরে রাখতে পারে না। শাস্তি দিয়ে শোধরানোর নামে আমরা আমাদের অপরাধীদেরকে আরো বড় অপরাধী বানাই, নতুন নতুন অপরাধী উৎপাদন করি। তাহলে অপরাধীদের শোধরানোর উপায় কী? সে আরেক আলোচনা। আরেকদিন করা যাবে।

আপাতত অন্তত এটুকু কি আমাদের কয়েদিদের জন্য করতে পারি না যে, আমাদের কয়েদিরাও আমাদের পুরো জাতির সাথে খেলা দেখার আবেগে ভাসবে, আনন্দে হাসবে, কষ্টে কাঁদবে? ইউরোপ আমেরিকার কথা বাদ দেই, আমাদের পাশের দেশ ভারত এটা করে ফেলেছে। আমরা কেন করবো না? শ্রদ্ধেয় অমর্ত্য সেন গুরুত্বপূর্ণ গবেষণায় দেখিয়েছেন বাংলাদেশ মানব উন্নয়নের প্রায় সব সূচকে ভারতের চাইতে এগিয়ে। এই যায়গায় আমরা ওদের চাইতে পিছিয়ে থাকবো কেন?