ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

আমি আমার আশে পাশের এমন অনেক পরিবারকে বলতে দেখেছি যারা এক কুরবানীর পর আর এর কুরবানী পর্যন্ত এককেজি গরুর মাংস কিনে না। এইসব পরিবারের অধিকাংশ অভাবের সংসার, চারশত থেকে পাঁচশত টাকা দিয়ে এককেজি মাংস কিনার দুঃসাহস এদের নেই। আর কিছু পরিবারকে দেখেছি যারা কুরবানীর দিনে জবাইকৃত পশুর মাংস (দুঃখিত তাদের কুরবানী কে কুরবানী বলতে পারছি না তাই জবাইকৃত পশু উল্লেখ করতে বাধ্য হচ্ছি) সারা বৎসরের জন্য মওজুত রাখে যার কারণে তাদের আর টাকা খরচ করে মাংস কিনতে হয় না।

আর মাত্র কয়েক দিন বাকী আমরা সবাই আমাদের সাধ্যমতে কুরবান করবো, আত্নীয়/বেয়াই কুরবানী করার পর ও লোক দেখানোর জন্য আমরা বেশী করে তাদের বাসায় মাংস পাঠাবো এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু যেই সব পরিবারের এই একটি দিন ভরসা আমরা যেনো তাদেরকে ভুলে না যায়। আমরা কেউ যেনো আমাদের চারপাশের এই সব অসহায় গরীব দুঃখী পরিবারকে না ভুলি। আমরা যেনো আমাদের গরীব দুঃখীদের ন্যায্য পাওনা প্রদান করি।