ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ১৮ তম বিসিএস পরীক্ষায় ইংরেজিতে শূন্য পেয়েও বিসিএস অফিসার পদে নিয়োগ পেয়েছেন বেশ কিছু সংখ্যক প্রার্থী কিন্তু পূর্ণাঙ্গ ইংরেজি মাধ্যমে উত্তীর্ণ এক প্রাথী চুড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। । ।। উল্লেখ্য, এভাবে দিন্ দিন প্রশাসন মেধাহীন হয়ে পড়ছে অনিয়ম আর নিয়োগ বাণিজ্যের কারনে। অপর দিকে প্রকৃত মেধাবিরা বঞ্ছিত হচ্ছে আর মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে এভাবে দিনের পর দিন। অবিলম্বে বিষয়টির সুস্থ তদন্ত সাপেক্ষে অনিয়মের মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া প্রার্থীদের নিয়োগ বাতিল সহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হোক। পাশাপাশি বঞ্ছিত প্রারথীদের নিয়োগের ব্যবস্থা করা হোক। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ভেবে দেখবেন। মহামান্য আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে স্বপ্রণোদিত রুল জারি করে বিষয়টির সমাধান করবেন বলে জাতি আশা করে। পূর্ণাঙ্গ ইংরেজি মাধ্যমে উত্তীর্ণ প্রার্থীকে চুড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ দিয়ে ইংরেজিতে শূন্য পাওয়া প্রার্থীকে বিসিএস অফিসার পদে নিয়োগ দান কতটা অন্যায় তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। বলাই বাহুল্য, এসব কারণে মেধাবীরা প্রশাসন ক্যাডারের চাকরিতে উৎসাহ পান না।

(Vide the Independent, 17th Sep’2010http://www.theindependentbd.com/paper-edition/editorial/letter/9608-letters-to-the-editor.html “A total of 3295 (20.11%) of candidates appearing at the 18th BCS examination (held in 1996-97) got zero in English, even though some of them qualified for BCS posts”. [Human Resource Management in Bangladesh Civil Service: Constraints and Contradictions, (Dr. Noore Alam Siddiquee), International Journal of Public Administration, 1532-4265, Volume 26, Issue 1, 2003, Pages 35-60].

18th BCS officers got zero in English!


18th BCS officers score zero in English