ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

 

আজ বিকেলে ব্লগার নিতাই বাবু ফোন দিয়ে এক দিনের সময় চাইলেন। তাকে সঙ্গ দিতে হবে পুরো দিন। কোথায় যাবেন দাদা? — ‘আরে, মায়মেনসিং। ওখানে আমাদের কাজী শহীদ শওকত দাদা আছেন না, ওনার সাথে কথা হল। বৌদির (মিসেস শওকত) সাথেও কথা হল। দু’ জনেই অমায়িক লোক। যেতে বললেন তাদের ওখানে। আমি বলেছি, একা আসবো না। জাকির দাদাকে সঙ্গে নিয়ে আসবো। ওনারা সায় দিলেন।’-এক নাগাড়ে কথাগুলো বললেন নিতাই দা।

নিতাই দা দারুণ মজার মানুষ। তার লেখাগুলোর মতোই তিনি সরল আর উদার। এরকম কাউকে অবজ্ঞা করার ব্যক্তিত্ব আমার নেই। বললাম, যাব। তবে পহেলা বৈশাখের পর। নিতাই দা হয়ত ভুলেই গিয়েছিলেন তার “পান্তা- ইলিশ” এর কথা। আমি অবশ্য বৈশাখের কথা বলেছি অন্য কারণে। এ দিন আমার এক ভাইয়ের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী।

আমরা যাচ্ছি। “নিমন্ত্রণ” রইল ব্লগ সাইটের সব ব্লগারদের যাতে পাছে অনুযোগ না তোলেন। কোন ইতস্তত করার দরকার নেই। কাজী ভাই আর ভাবী কিচ্ছু মনে করবেন না। আপনারা সব্বাই চলে আসবেন।

রাজ্জাক ভাই দেশে থাকলে খুব মজা হত। আতাস্বপন আর মুফতি মহোদয়কে পেলে ভালোই লাগবে। তুলোধুণো মেশিন ফারদিন ভাই থাকলে তো কথাই নাই। এই আপনারা, যাদের নামোল্লেখ করতে পারলাম না তারা কিন্তু রাগ কইরেন না। সব্বার দাওয়াত শুধু ব্লগপোষক ছাড়া। ওনারা গেলে আমাদের ট্রাশে ফেলে দিতে পারেন।

ব্লগপোষক কি দয়া করে রোদেলা নীলার খবর জানাতে পারেন। তিনি অনেক দিন ধরে ব্লগে নেই। কোথায় কেমন আছেন জানতে ইচ্ছা করে।

কাজী শওকত ভাই রেডি থাইকেন, ভাবীরে লইয়া। ব্লগের পোলাপানগুলা আইতাছে……