ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

জীবনের একটা পর্যায়ে এসে কখনোও না কখনো আমরা একবার হলেও পেছন ফিরে আমাদের অতীত নিয়ে ঘাটাঘাঁটি করি। আর তখন একটাই প্রশ্ন খুঁজে পাই যা জাগে সবার মাঝেই। তা হলো, “আমি কি এটাই হতে চেয়েছিলাম ? “অথবা” আমার অ্যাচিভমেন্ট ঠিক কতটুকু হলো ?”

হ্যাঁ, ধাক্কাটা কিন্তু তখন লাগবেই, যখন দেখবেন, যা চেয়েছিলেন, তা পাননি, জীবন আপনাকে তা হতে দেয়নি…অথবা আপনার অ্যাচিভমেন্ট “শূন্য”……

বুকে ইচ্ছে থাকে এক, চোখে স্বপ্ন থাকে আরেক। আর সবশেষে বাস্তব নিয়ে দাঁড় করায় সম্পূর্ণ ভিন্ন এক পরিবেশের দোরগোড়ায়, যেখানে বর্তমানের এই যন্ত্রচালিত পৃথিবী চালায় তার নিজেরই সিস্টেমে। আর এই সিস্টেমের নিজস্ব গতির সাথে চলতে গিয়ে হারিয়ে যায়, ছিটকে যায়, অনেকেই। টিকে থাকে শুধুমাত্র যোগ্যতম যারা।

বর্তমানে আমাদের দেশে চাকুরির বাজার সহজলভ্য নয়। আবার চাকুরি পেয়ে গেলেও তাতে উন্নতি সহজসাধ্য নয়।
এর জন্য অনেকেই দোষারোপ করে নিজের ভাগ্যকে। ভাগ্যের উপর দোষ চাপিয়ে আপনি আপনার ভুল ক্রুটিগুলোতো ঢাকতে পারবেন, ওতে কিন্তু “শুদ্ধকরণ” প্রক্রিয়া সম্ভব হবে না। আর প্রকৃত “শুদ্ধকরণ” এর দ্বারা টিকে থাকা তখনই সম্ভব, যখন আপনি তৈরি করবেন নিজেকে, প্রমাণ করবেন নিজের যোগ্যতা। প্রতিষ্ঠিত করবেন “ব্র্যান্ড”, নিজের ব্র্যান্ড…… আপনার নাম।

আজকাল সফলতা টিকে থাকে নামের উপর, ব্র্যান্ডের উপর। হোক সেটা “প্রোডাক্ট” অথবা “সার্ভিস”। আর কর্মক্ষেত্রে অন্যদের চেয়ে বেশি আপনার যোগ্যতা প্রমাণিত হবে, টিকে থাকবে আপনার শ্রেষ্ঠতা, আপনার নামের উপর, আপনার ব্র্যান্ডের উপর। যা তৈরি করতে চাইলে কিছু দিকেতো দক্ষতা আপনার বাড়াতেই হবে।

সেই গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো হচ্ছে :


১। যোগাযোগের দক্ষতা।
২। আই টি সেক্টরে দক্ষতা।
৩। উপস্থাপনের দক্ষতা।
৪। নেতৃত্বের দক্ষতা।

যোগাযোগের দক্ষতা
“Communication skill” বা “যোগাযোগের দক্ষতা” খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যার নেটওর্য়াক যতটা শক্ত, সে ততটা বেশী প্রতিষ্ঠিত। শুধুমাত্র তার প্রফেশনাল লাইফেই নয় ব্যক্তিগত পর্যায়েও। প্রতিদিন পরিচয় ঘটে যাওয়া ব্যক্তিদের নাম, ফোন নম্বর, ভিজিটিং কার্ডগুলো সংগ্রহ করুন স্বযতেœ। এবং যে কোন অকেশনগুলোতে পাঠিয়ে দিন অভিনন্দন ছোট্ট একটা কল বা sms এর দ্বারা। এতে গড়ে উঠবে আপনার চেনা পরিচিতিদের গন্ডি। শক্ত হবে আপনার নেটওর্য়াক। Communication skill ভাল করবার জন্য ভাষাগত দিকটাতেও সজাগ থাকুন। আপনার মার্জিত, সুস্পষ্ট, বাচনভঙ্গি দাগ কেটে যাবে অন্যের মনে।

দক্ষতা IT সেক্টরে
বর্তমানে আমাদের জীবনটা IT দিয়েই ঘেরা। আর এ জগৎ সম্পর্কে অজ্ঞ ব্যক্তিরা সবার আগে যোগ্যতাহীন বলেই পরিচয় পায়। IT সেক্টরে দক্ষতা থাকলে অফিসের অনেক কাজই আপনার গোছানো এবং সহজসাধ্য হবে। IT এর নলেজ থাকলে “সিনক্রোনাইজ” করতে পারবেন আপনার কাজগুলো, এতে সময় ও শ্রম দুটো তো বাঁচবেই, স্মার্ট ব্যক্তি হিসাবেও পাবেন পরিচিতি, হবেন অন্যেদের হিংসার পাত্র।

উপস্থাপনের দক্ষতা
“Presentation skill” একজন পারফেক্ট প্রফেসনাল বা নিজেকে ব্র্যান্ডিং করবার প্রথম শর্ত। আপনার উপস্থাপনায় পরিচয় পাওয়া যাবে, আপনার ”Depth” কতটুকু। সাবলীল ভঙ্গিমায় উপস্থাপন করুন নিজেকে যেখানে প্রকাশ পাবে আপনার কনফিডেন্ট। আর উপস্থাপনা কিন্তু শুধু নিজেকেই নয়, পরবর্তীতে করতে হবে আপনার কোম্পানিকে। কাজেই আপনার উপস্থাপনা আর্কষিত করবার জন্য “সেলফ প্রাকটিস” ছাড়া কোন বিকল্প নেই। বাসায় আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলুন, ঘরোয়া কোন অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করুন, সংবাদপত্রগুলো শব্দ করে পড়ার অভ্যাস করুন। মোট কথা সবার আগে “জড়তা” কাটিয়ে উঠুন। কারণ উপস্থাপনায় “জড়তা” নামক অনুভূতিটি সবচেয়ে বড় একটি অন্তরায়। মূহূর্তেই পন্ড করে দেবে আপনার নিজেকে প্রকাশ করবার অভিপ্রায়। কাজেই এই জড়তা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করুন সবার আগে। আর কথা বলবার সময় শব্দ নির্বাচন করুন তীক্ষèভাবে।
মনে রাখবেন- আপনার “Presentation skill” উন্নত, সাবলীল আর চৌকশ হলে আপনার ব্র্যান্ড শক্ত হতে থাকবে আপনা আপনিই।

নেতৃত্বের দক্ষতা
আপনার কথা অন্যেরা তখনোই শুনবে যখন আপনার উপস্থাপনা আর্কষিত হবে। আর আপনার নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ তখনই করবে যখন নেতৃত্ব দানের গুনাবলী আপনার মাঝে থাকবে।

আপনি যে কাজই করবেননা কেন, হোক সেটা অফিসিয়াল বা পারসোনাল, নিজের ১০০% দেবার চেষ্টা করবেন। দায়িত্ব নিয়ে কাজ করবেন এবং just in time তা শেষও করবেন। দায়িত্ব নেবার সময় অবশ্যই খেয়াল করবেন তা পালন করবার ক্ষমতা আপনার কতটুকু আছে। সৎ উদ্দেশ্যে দায়িত্ব কাঁধে চাপিয়ে তা পালন করতে না পারলে আপনার “Good will” বা সম্মানে তা আঘাত হানবে। এতে খর্ব হবে আপনার ইমেজ উর্ধ্বতন ও নিম্নোস্তর কর্মকর্তাদের নিকট।

আর নেতৃত্বের বেলায় ক্ষমতার অপব্যবহার থেকে নিজেকে পুরোপুরি বিরত রাখুন।
একজন সফল নেতা সবার কাছেই একজন আস্থাবান মানুষ…যা বহু জনের মাঝে…আলাদা একটি ব্যক্তিত্ব।

চর্চা করুন উল্লেখিত বিষয়গুলো। চর্চা ছাড়া কোন কিছুই অর্জন করা সম্ভব নয় আজকের এই প্রতিযোগীতামূলক বাজারে।

অতীত ঘেঁটে হারিয়ে যাওয়া, সেই মনের মতো ইচ্ছানুযায়ী ব্যক্তিটি যদি নাই বা হতে পারেন তবুও কষ্ট অনেকটাই কেটে যাবে, ঠোঁটের কোণে এক চিলতে হাসি ফুটে উঠবে, যখন দেখবেন…..

নিজের নাম, আপনার নাম…….একটি ব্র্যান্ড।