ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আমার মাঝে মাঝে মনে হয়, খুব কি কঠিন দেশকে একটু মন খুলে ভালোবেসে দেশের জন্য কিছু করা? দেশের প্রতি একটু যত্নবান হওয়া?

সেদিন অপরিচিত একজন লোক খুব বিরক্তির সাথে বলছিলেন “যদি টাকা থাকে তাইলে কে থাকে এই …….দেশে?” বুঝাই যাচ্ছে ডট (……) চিহ্নের স্থানে ভালো কোন শব্দের ব্যবহার হয়নি। বিশেষ করে নিজের দেশের সম্বন্ধে এমন কথা নিশ্চয়ই খুব খারাপ লেগেছে কিন্তু এটাও বুঝতে পারছিলাম যে, তার এই বিরক্তি দেশের উপর নয়, বিরক্তিটা দেশের পরিস্থিতির উপর। ঐ ব্যক্তির পরের কথাটি ছিল এ রকম “মালয়েশিয়ায় পরিবেশ থাকার জন্য অনেক ভালো। অনেকে এখন সেকেন্ড হোম হিসেবে মালয়েশিয়াকে বেছে নিচ্ছে।”

তারমানে সবার মতো ঐ ব্যক্তিটিও শান্তিতে বসবাস করতে চান কিন্তু নিজের দেশের ব্যপারে তিনি এতটাই হতাশ যে, শান্তির খোঁজে দেশ ছাড়তেও রাজি। এমন চিন্তার অনেক লোকই হয়তো আমাদের দেশে পাওয়া যাবে। এটা একটা কঠিন বাস্তবতা যে, আমাদের দেশে দিনের পর দিন এমন সব অনাকাঙ্খিত পরিবর্তন ঘটে চলেছে যার ভয়াবহ প্রভাব হয়তো অদূর ভবিষ্যতে আমাদের নিয়ন্ত্রনের বাইরেই চলে যাবে। যার প্রভাব পরবে পুরো দেশবাসীর উপর।

জানি, অনেক ক্ষেত্রেই আমরা সাধারন দেশবাসী হয়তো তেমন কিছু করবার মত ক্ষমতা রাখি না, কিন্তু নিজ নিজ জায়গা থেকে যতটুকু করা সম্ভব তার কতটুকুই বা আমরা করি? দেশটাকে শান্তিতে বসবাসের যোগ্য করে তোলার জন্য কতটুকু চেষ্টাই আমাদের সত্যিকার অর্থে আছে?

হয়তোবা নিজের অজান্তে শুধু মন থেকেই আশা করে গিয়েছি। এই আশার মাঝে কোন খাদ হয়তো ছিল না কিন্তু ভেবে দেখিনি যে, আশাকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য আমাদেরই চেষ্টা করতে হবে। কারন, দেশটাতো আমাদেরই।

জীবনে কি চাই? এমন প্রশ্নের এক কথায় উপযুক্ত উত্তর বোধহয় এটিই “শান্তি”। যাকে অন্য ভাবে বলা যায়, সব চাওয়ার মূল চাওয়া হলো “শান্তি”। অার এই শান্তিটা আসতে পারে অনেক ভাবে। হয়তো আপনার কোন উদ্যোগ, চেষ্টা অথবা একটু সচেতনতার মাধ্যমে আপনার হাত ধরেই আসতে পারে শান্তির কোন বার্তা। এমন উদাহরন কিন্তু সংবাদ মাধ্যমে আমরা মাঝে মধ্যে দেখতেও পাই।

একটু ভেবে দেখুন, আপনি কি কি করতে পারেন? কি কি করা আপনার পক্ষে সম্ভব? হোক সেটা যতই ছোট কোনো বিষয়, যদি তা হয় মানুষের জন্য পজিটিভ কিছু – গুরুত্ব দিন, একটু চেষ্টা করুন, অন্যকেও উৎসাহ দিন। হয়তো দেখবেন, আপনার পক্ষে যতটুকু সম্ভব হবে বলে আপনি ভেবেছিলেন আপনি তার চাইতেও বেশী পারছেন।

ভেবে দেখুন তো, আপনার মহল্লায় সবাই যদি দু`দিনের জন্য হলেও যেখানে সেখানে ময়লা ফেলার ব্যপারে সচেতন হয়, অপনার মহল্লার চেহারাটাই কত পাল্টে যাবে। বাড়ি থেকে বের হবার পথে আপনার মনটা বিরক্তিতে ভরে উঠবে না, নাকটা দুর্গন্ধে কুচকে যাবেনা।

আপনারা কেউ কেউ হয়তো দেখে থাকবেন আপনার এলাকার সুবিধা বঞ্চিত শিশুরাও দিনের কোন একটা সময় একটা দু`টা বই হাতে দু`তিনজন মিলে কোথাও যাচ্ছে। কারো গায়ে মলিন ছেড়া জামা, কারো হয়তো সেটাও নেই। একবার ওদের সাথে যান, দেখুন কারা ওদের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে, তাদের সাথে আলা করুন, যতটুকু যেভাবে সম্ভব সহোযোগিতা করুন। আপনার এলাকায় এমনটা শুরু না হয়ে থাকলে শুরু করুন। অপনার সময়ের অভাব থাকলে উদ্যোগ নিয়ে ছোটো ভাই বোনদের সম্পৃক্ত করুন। সপ্তাহের ব্যস্ততার ফাঁকে আপনার বাঁচানো দু`টি ঘন্টা যদি আপনি এমন কোন উদ্যোগের সাথে ব্যয় করেন, আপনার জীবনের খুব একটা সময় হয়তো দিতে হবেনা কিন্তু অনেকগুলো জীবনের মূল ধারাটাই হয়তো বদলে যাবে। জীবন হবে আলোকিত। এতে যেমন শান্তি লাভ করবেন আপনি, তেমনি উপকৃত হবে দেশ ও জাতি।

(ব্লগে এই প্রথম লিখলাম। বুঝতে পারছিনা কতটা গুছিয়ে মনের ভাবনাটাকে প্রকাশ করতে পারলাম। যাই হোক সাহস করে পোষ্ট করছি। নতুন সদস্য হিসেবে সবার প্রতি শুভেচ্ছা রইলো আর ধন্যবাদ জানাচ্ছি bdbdবিডিনিউজ২৪-কে এমন একটি চমৎকার সুযোগ করে দেবার জন্য।)