ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

সভ্যতার স্বার্থেই ডাকাত শহীদদের মেরে ফেলতে হবে কারন তারা বেচে থাকলে লক্ষ মানুষ প্রান অপঘাত মৃত্যুর ঝুঁকিতে থাকবে! যারা মানবাধিকারের জিকির তোলেন তাদের জন্যে এটুকুই বলা যায় যে আল্লাহ না করুন তাদের পরিবারের কেউ কখনও এদের হাতে প্রান হারিয়েছেন কিনা, বা অত্যাচারিত বা চোখের সামনে ধর্ষিত হয়েছেন কিনা?

যখন এরা প্রচলিত বিচার পদ্ধতির বাইরে অর্থাৎ টাকার বিনিময়ে এবং প্রানে মারার নিশ্চিত হুমকি প্রদানের মাধ্যমে যে কোন ভাবে বিচার কে প্রভাবিত করে স্বচ্ছন্দে তাদের খুন-নিপীড়ন-ধর্ষন বা অত্যাচার চালিয়ে যেতে পারে, তখন তারা আর “মানুষ” থাকে না, মানুষের চেহারায় খুনী হিংস্র পশুতে পরিনত হয়! এই পশুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা আর এদের মারা মানব ধর্মের অঙ্গীভূত আর সেটাই মানবতা! এক জনের জন্যে লক্ষ প্রান মৃত্যু ঝুঁকিতে থাকতে পারে না!

প্রকৃতির বিরুদ্ধে চলে যাওয়া এই মানব পশুদের হত্যাই তখন শ্রেষ্ঠ সমাধান কারন তারা বেঁচে থাকলে লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হবে, এমন বাঘ বা অন্যান্য নরখাদক জন্তুকে যেমন সভ্যতার স্বার্থেই মেরে ফেলতে হয়, এদের মেরে ফেলাও সেই রকম অমোঘ প্রাকৃতিক বিধান এবং ইতিহাসে এই ধরনের সার্বজনীন মঙ্গলকামী হত্যাকান্ড এর উদাহারন বার বার দেয়া আছে! এই ধরনের “পপুলার কিলিং” নতুন একজন ডাকাত শহীদ হওয়ার খায়েস ওয়ালাদের ৯০% ভাগ কে রুখে দেবে, আর যারা ওই ধরনের এখনও নানান মাপের রয়ে গেছে তাদের হুশিয়ার করে ও ঠেকিয়ে দেবে ফের কোন অপরাধ করার আগে, ফলে শতকরা ৫০% “প্রবাবাবল” অপরাধ একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্যে কমে যাবে, এটাই অপরাধ বিজ্ঞানের তত্ত্ব! পরবর্তীতে অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নিলেই চলবে!

ইতিহাসে রাশিয়ান জারিষ্ট আমলের কুখ্যাত রাসপুটিনের বিখ্যাত হত্যা কান্ড, পাকিস্তানী আমলের এন এস এফ এর “পাস পার্ট টু”, খোকা ইত্যাদি গন নন্দিত হত্যা, নিকট অতীতের খুলনার লিটু, ডাকাত শহীদ, পিচ্চি হান্নান ইত্যাদিদের জন্যে এটাই ছিল প্রকৃতির অমোঘ বিধান, তা তারা যাদের হাতেই খুন হন না কেন! বৃটিশ আমলের বঙ্গীয় অনূশীলন ও যুগান্তর পার্টির চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনে “পপুলার কিলিং” হত্যা ও অন্যান্য গণ নন্দিত হত্যাকান্ড এ ব্যাপারে উল্লেখ্য! তা ছাড়া বিনয় বাদল দীনেশ এর কোলকাতা রাইটারস বিল্ডিং এ কুখ্যাত বৃটিশ পুলিশ কমিশনার চার্লস টেগার্টকে হত্যার প্রচেস্টা ও ক্ষুদিরামের ইংরেজ বড়লাট হত্যার প্রচেস্টাও বিপুল ভাবে জন নন্দিত! এ ক্ষেত্রে প্রলেতারেতীয় শ্রেনী শত্রু নিধনের কথা নায় বাদ ই দিলাম, অনেকেই না গ্রহন করতে পারেন, কিন্তু মানতেই হবে যে সমাজতন্ত্রও একটি জনপ্রিয় শাস্ত্র দর্শন আর তাতে শ্রেনী শত্রু নিধনের নির্দেশ রয়েছে! তবে সাথে শ্রেনী শত্রুকে কি ভাবে সনাক্ত করতে হবে তার ও নির্দেশ রয়েছে!

সাধারন মানুষের খুনী, যার বিচার সম্ভন নয়, তার বেঁচে থাকার কোন অধিকার নেই, পৃথিবীতে তো মানুষের অভাব নেই, নরপশু কেন রাখতে হবে?