ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

 

আসছে ১১ ফেব্রুয়ারী আমাদের অতি প্রিয় বিডিনিউজ২৪.কম ব্লগের ২য় বর্ষপূর্তি হতে যাচ্ছে। উল্লেখ্য যে নাগরিক সাংবাদিকতা ভিত্তিক পরিচ্ছন্ন ও বস্তুনিষ্ঠ এই ব্লগটি এক অনাড়ম্বর আয়োজনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করেছিল ২০১১ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি। অন্যান্য নতুন ও পুরাতন অনেক ব্লগের সাথে এই ব্লগটি যে অতি দ্রুত জনপ্রিয়তা ও পাঠকের বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয় তা বলাবাহুল্য।

সম্মানিত ব্লগটিম কর্তৃক প্রেরিত বার্তার মাধ্যমে জানতে পারি যে, বিডিব্লগের ১ম বর্ষপূর্তি ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারী অনেক শুভানুধ্যায়ি ও সহযাত্রী ব্লগারদের উপস্থিতিতে সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ কথা স্বীকার করে নিতেই হবে যে, প্রথম বর্ষের তুলনায় দ্বিতীয় বর্ষে এসে বিডিব্লগ অনেক বেশি গতিশীল, পরিচ্ছন্ন ও মানসম্পন্ন ব্লগ হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছে। আর তাইতো প্রথম বর্ষের নিবন্ধিত ব্লগারের থেকে ব্লগার সংখ্যাও বেড়েছে বহুগুনে, বেড়েছে পোস্ট ও মন্তব্যের গুণগত মান-বৈচিত্র্য।আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমাদের বিডিব্লগের ব্লগার হয়েছেন পুরুস্কৃত। আমরা সামাজিক দায়বদ্ধতার খাতিরে লেখা লিখেই ক্ষ্যান্ত হইনি, আমরা হাতে হাতে মিলিয়ে চট্টগ্রামের পাহাড় ধ্বসে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছি, আমরা উষ্ণতা নিয়ে পৌছে গেছি দুর্গম চরের শীতার্তদের মাঝে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভাসিত আমরা আমাদের সশ্রদ্ধ ভালোবাসা গেঁথে দিয়েছি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি জাগানিয়া জাদুঘরের প্রান্তরে, “আমাদের পাঠশালা” নামক সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কাছে পৌছে দিয়েছি আমাদের ভালোবাসা। আমরা পারি, আমরা পারব এই মন্ত্রে উজ্জীবিত আমাদের সুশিক্ষিত ব্লগারগন।

সমসাময়িক অনেক বাংলা ব্লগের তুলনায় বিডিব্লগ নিঃসন্দেহে অশ্লীলতা, বাংলা ভাষা বিকৃতি, সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতামুক্ত একটি চমত্কার ব্লগ। আর এর সম্পূর্ণ কৃতিত্ব অবশ্যই আমাদের প্রিয় ব্লগটিমের। কখনো কোনসময় কোনও পোস্টে যদি ভুল ক্রমেও কোনও অশ্লীল শব্দ এড়িয়ে গিয়ে থাকে, আমাদের ঈগল চক্ষু দক্ষ ব্লগটিম পরবর্তীতে তা খুঁজে বের করে মডারেট করে দিয়ে ব্লগটিকে কলংক মুক্ত করে থাকেন।ব্লগের ২য় বছরে নিঃসন্দেহে আমাদের প্রিয় দক্ষ ব্লগটিম অভিজ্ঞতায় আরও সমৃদ্ধ হয়েছে যার সুফল আমরা এখন পাচ্ছি, ভবিষ্যতেও পাব বলে আশা ব্যক্ত করছি।

বিডি ব্লগের ব্লগারেরা সর্বদাই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি নিয়ে সোচ্চার আছেন তার প্রতিফলন আমরা বিভিন্ন পোস্টে বলিষ্ঠভাবে দেখেছি। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও সেইসাথে স্বাধীনতা পরবর্তী বিভিন্ন ইতিহাস বস্তুনিষ্ঠভাবে ফুটে উঠেছে বিভিন্ন ব্লগারের পোস্টে এবং পাঠকের মন্তব্যে। এছাড়াও আমরা নারী নির্যাতন, প্রতিবন্ধী অধিকার আদায়, সামাজিক বিভিন্ন অসঙ্গতি, রাজনীতি, কূটনীতি, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ঘটনা বিশ্লেষণ, দেশের অর্থনীতি ছাড়াও নাগরিক বিভিন্ন সমস্যা ও তার যুক্তিযুক্ত সমাধানমূলক পোস্ট লিখেছি। আমরা ধর্মীয় কুসংস্কারের গোড়ায় আঘাত দিয়েছি আমাদের জ্ঞান ও যুক্তির আলোকে। আমরা আমাদের সমাজে অনুকরণীয় বিভিন্ন ব্যক্তিত্বদের নিয়ে পোস্ট লিখেছি। সাহিত্য, শিল্প, মিউজিক এমন কোনও বিষয় নেই যা নিয়ে বিডি ব্লগে পোস্ট লেখা হয় নি।

আমাদের প্রিয় বিডি ব্লগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীকে তাই স্মরণীয় করতে আমদেরকেই উদ্যোগ নিতে হবে। আমরা সবাই আমাদের নিজেদের মত করে ব্লগের সালতামামি লিখতে পারি। নিজেদের পছন্দের টপ টেন ব্লগার/পোস্ট এর তালিকা দিয়ে পোস্ট লিখতে পারি, ব্লগ লিখিয়েদের মজার খেতাব দিয়ে ভূষিত করতে পারি, ইত্যাদি ইত্যাদি। মোট কথা চলুন আমাদের বিডিব্লগকে এই বিশেষ দিনে নানা রঙ বেরঙের পোস্ট লিখে সবাইকে আনন্দে মাতিয়ে তুলি।

এ তো গেল ভার্চুয়াল আনন্দ উত্সব। বাস্তবেও আমরা সব ব্লগার এইদিনে ঢাকাসহ নিজ নিজ জেলা শহরে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আয়োজন করতে পারি। ব্লগার, শুভানধ্যায়ীসহ পরিবার পরিজন নিয়ে স্মরণীয় করে রাখতে পারি আমাদের বিশেষ এই দিনটিকে। আয়োজিত অনুষ্ঠানে আমরা কিছু খানাপিনার আয়োজনসহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যেতে পারে। আমরা ব্লগারেরা স্বতপ্রণোদিত হয়ে ন্যূনতম ১০০ টাকা করে হলেও সবাই মিলে একটা সংগৃহীত অনুদান তুলে দিতে পারি কোনও ভাগ্যাহত মুক্তিযোদ্ধার হাতে, কিংবা কোনও দরিদ্র মেধাবী প্রতিবন্ধী শিশু কিংবা সুবিধাবঞ্চিত কোনও বৃদ্ধা/বৃদ্ধ বা নিগৃহিত কোনও নারীর হাতে। মোট কথা আমরা সবাই মিলে এই দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে পারি মহতী কোনও উদ্যোগে অংশগ্রহণ করে।

বিডি ব্লগের একজন নিয়মিত ব্লগার হিসেবে আমাদের প্রিয় ব্লগের আসন্ন প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ব্লগে এবং ব্লগের বাইরে কিভাবে স্মরণীয় করে রাখা যায় তা আলোচনা করার জন্য আহবান করছি।

বর্ষপূর্তি সফল হোক।