ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

 

বিডিনিউজ২৪.কম সেই আদ্দিকাল থেকে পড়লেও ছোট করে নিচে লেখা ব্লগ লেখাটায় জিন্দেগিতে ক্লিক দেই নাই। কিন্তু একদিন পারসোনা পার্লার কেলেংকারী নিয়ে ব্লগ হাইলাইট পোস্টটি আমার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। আমি নিজে পার্লারের ধারে কাছে না গেলেও যেকোনো কেলেংকারী নিয়ে আমার আবার ব্যাপক আগ্রহ। তাই চরম কৌতুহল নিয়ে কী লেখা আছে পড়ার জন্য ক্লিক করলাম। গগ্রাসে রিপোর্ট ও মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য পড়ে গেলাম। লেখার উপরে হাস্যজ্জ্বল সুন্দর একটা মেয়ের ছবি ব্যানারে শোভা পাচ্ছে দেখলাম। নিচে লেখা লেখকের নাম আইরিন সুলতানা। আইরিন সুলতানার নামের উপর ক্লিক করে তার আরও কিছু পোস্ট পড়েছিলাম সেদিন।

আমার ব্লগিং ইতিহাসে সেক্ষেত্রে সর্বপ্রথম যে ব্লগারের ব্লগের সাথে পরিচিত হলাম, তিনি হলেন আইরিন সুলতানা।

এরপর এই ব্লগে আমি প্রতিদিন ঢু মারা শুরু করলাম। ধীরে ধীরে জাহেদ-উর-রহমান, পাগল মন, আবু সুফিয়ান, আরিফ হোসেন সাঈদ, নুরুন্নাহার শিরীন, আসাদুজজেমান, সোহেল মাহমুদের লেখাগুলো ভীষণ ভাল লাগতে লাগলো। অতিথি থেকে সাহস করে দু-একটা মন্তব্য করে বসলাম।

এরও পরে ১৪ ফেব্রুয়ারির এই দিনে তেমন কিছু ভাবনা-চিন্তা না করেই বিডি ব্লগে নিবন্ধন করি। না, লেখালেখি কোনদিন করব বা করতে পারব এমন চিন্তা মাথায় আসেনি কখনো। আমি শুধুই পোস্ট লেখকের সাথে মন্তব্য দিয়ে আমার ভাবনাগুলো শেয়ার করার জন্যই নিবন্ধন করেছিলাম মাত্র।

আমি প্রথম পোস্ট লিখি ২৩ মার্চ ২০১২। খুবই সংক্ষিপ্ত একটি পোস্ট। হাসিনা, খালেদা, এরশাদ এবং আমাদের ক্রিকেট বরাবরই আমি খেলাধুলার ভক্ত। তো ইন্টারনেটে এশিয়া কাপে বাংলাদেশের লাইভ ক্রিকেট খেলা দেখছিলাম সেদিন। ক্রিকেটের মাঠে দলের বিজয়ের জন্য হাসিনা-খালেদা-এরশাদ সবাইকে একসাথে দেখে কিছু একটা লিখতে মন চাইল। সাহস করে দু-চার লাইন লিখেছিলাম।

আশ্চর্য হয়েছিলাম আমার মত অখ্যাত ব্লগারের ব্লগে মোর্শেদ নোমান ও আবু সুফিয়ানের মত ব্লগার সেদিন কমেন্টস করেছিল। উল্লেখ্য যে, আমার পোস্টগুলোতে আবু সুফিয়ান ভাইয়ের মন্তব্য রেগুলার পেতাম। ওনার মত একজন অভিজ্ঞ ব্লগার আমার মত নবীন লেখকের পোস্টে মন্তব্য করছেন দেখে ভাল লাগতো।

ধীরে ধীরে কিছুটা গ্যাপে লিখতে শুরু করলাম। আমাকে লেখালেখিতে বরাবরই উত্সাহ দিয়েছিলেন ব্লগার জাহেদ। আর ব্লগার হৃদয়ে বাংলাদেশকে দেখতাম মন্তব্যের ঘরে প্রায়ই পোস্টের সাথে রিলেটেড কোনও না কোনও বই, ডিকশনারি বা নিউজপেপার লিঙ্ক দিয়ে দিতেন।বলাবাহুল্য যে, আমি কৌতুহলি হয়ে সেসব লিঙ্ক ভিজিট করতাম। হঠাত্ই উপলদ্ধি করলাম উনি আসলে আমাকে আমার লেখার মান কিভাবে বাড়ানো যায় সেজন্যই এসব লিঙ্ক দিচ্ছেন !! আমি মনোযোগী ছাত্রের মত তা ফলো করতাম!!

আমি আমার প্রতিটি লেখার জন্য যথেষ্ট পড়াশুনা করে নেই। তথ্যে যাতে কোনও মিথ্যা না থাকে, কোনও অসঙ্গতি না থাকে আমি সেদিকে সর্বদা খেয়াল রাখি।

আর একটা জিনিস আমি যা করি, তা হল আমি প্রচুর কমেন্টস করি। কারণ আমি ব্লগের প্রায় সব পোস্ট পড়ি। পোস্ট পড়লাম আর কোনও মন্তব্য রেখে যাব না, এ জিনিস আমার একদম পছন্দ নয়। আমি যেমন শুরুর দিকে অভিজ্ঞ ব্লগারদের কাছে এক শব্দের মন্তব্য পেয়ে আপ্লুত হতাম, ভাল লেখার তাগিদ অনুভব করতাম, ঠিক সেই অনুভতি আমি মন্তব্য দিয়ে নবীন ব্লগারদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে চাই। তাই আমি প্রচুর মন্তব্য করি। গত এক বছরে আমি আজকের অপ্রকাশিতগুলো বাদ দিয়ে আমি মোট ২৩৯২+ মন্তব্য করেছি।

একজন ব্লগার হবার শর্ত পূরণের আমি আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। আমি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে সমাজের অসঙ্গতি তুলে ধরতে চেষ্টা করেছি..আর্ত মানবতায় নিজের সামর্থানুযায়ী পাশে থাকার চেষ্টা করেছি, অন্যের পোস্টে নিজের মন্তব্য দিয়েছি, নিজের পোস্টে সবার মন্তব্যের প্রতিউত্তর দিয়েছি।

বিডি ব্লগে দেখতে দেখতে এক বছর কেটে গেল আজ।১৪ ফেব্রুয়ারীর ভালোবাসা দিবসের এই বিশেষ দিনে কোনও বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে নিবন্ধন করিনি সত্য, কিন্তু ধীরে ধীরে এই ব্লগের ভালবাসায় আমি আটকা পড়েছি। এখানে সবাইকে আমি উজাড় করে ভালবেসেছি, ঠিক তেমনি দল-মত নির্বিশেষে সবার কাছে অফুরন্ত ভালোবাসা পেয়েছি।তাইতো ভালোবাসা দিবসের এই দিনে আজ সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছি “বিডিনিউজ২৪ ব্লগ”ই হল আমার ভ্যালেন্টাইন!!!”